Feeds:
Posts
Comments

Posts Tagged ‘ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ’

A leader is best when people barely know he exists, when his work is done, his aim fulfilled, they will say: we did it ourselves.

— Lao Tzu

৫৮৮.

প্রশ্ন করি একটা?

আপনার ইন্টারনেট ব্যবহারের কতোটুকু আসে বাইরে থেকে? মানে দেশের বাইরে?

পুরোটাই?

বোধহয় না। দেশের পত্রিকাগুলোর অনলাইন ভার্সন দিয়ে শুরু করতে দেখেছি আমার বন্ধুদের। পত্রিকাগুলোর অফিস কি নিউ ইয়র্কে? অবশ্যই না। তারা * আছেন বাংলাদেশে।

৫৮৯.

আপনার মেইলের প্রাপকের কতো শতাংশ থাকেন বাইরে?

আপনার অফিসের মেইলের কথা চিন্তা করুন তো একবার। প্রেরক আর প্রাপক সবাই আছেন দেশে। পাঠাচ্ছেনও বড় বড় অ্যাটাচমেন্ট। আমার ট্রাভেল এজেন্ট আমাকে তার টিকেট পাঠান তার জিমেইল অ্যাকাউন্ট থেকে। আমিও পাঠাই ইয়া ভারি পাসপোর্টের অ্যাটাচমেন্ট। অবাক ব্যাপার হচ্ছে আমরা সবাই আছি দেশেই। অথচ মেইলগুলো ঘুরে আসছে দেশের বাইরে থেকে। চিন্তা করুন – ওই মেইলটা আমাদের কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে কেনা ব্যান্ডউইডধ খরচ করে – যাচ্ছে একবার দেশের বাইরে। আবার, ফিরছে আরেকটা দামী লিঙ্ক দিয়ে। অনেকদেশ ধারনা করে – আমাদের মনে হয় অনেক পয়সা, পেট্রোডলারের মতো খানিকটা, খরচ করার যায়গা পাচ্ছে না বলে এই পদ্ধতি। সত্যি কি তাই?

৫৯০.

ছিয়ানব্বই-আটানব্বই সালের ঘটনা একটা। ফ্রীবিএসডি, লিনাক্স আর উইনডোজ ৩.১ নিয়ে অনেক মেশিনের ছড়াছড়ি ছিলো আমার অফিসে। একেক অ্যাপ্লিকেশন একেকটাতে। ভাগ্যিস ভিএমএস ছিলো না তখনো। কয়েকটা মেশিন এই অফিসে থাকলেও জায়গার সংকুলান না হওয়ায় বাকিগুলোকে পাঠানো হলো অন্য অফিসে। পাশাপাশি দু অফিস হলেও ইন্টারনেট নেয়া ছিলো দুটো আইএসপি থেকে। অফিস দুটোর মধ্যে নেটওয়ার্কটা সমস্যা দেয়াতে শিখলাম একটা নতুন জিনিস। প্যাকেট ট্রেসিং করে দেখা গেলো ট্রাফিক ঘুরে আসছে আমস্টারড্যাম আর হংকংয়ের রাউটার হয়ে। পাশের অফিস, কিন্তু ঘুরে আসছে সাত সমুদ্দুর তেরো নদী পাড়ি দিয়ে – বিশ ত্রিশটা ‘এজ’ রাউটারে সময় নষ্ট করে।

দুনিয়া ঘুরে যাচ্ছে ট্রাফিক। যাচ্ছে গ্রাহকের পয়সা, গতি হারাচ্ছে ইন্টারনেট। পয়সা পাচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারগুলো।

দুনিয়া ঘুরে যাচ্ছে ট্রাফিক। যাচ্ছে গ্রাহকের পয়সা, গতি হারাচ্ছে ইন্টারনেট। বাড়ছে ল্যাটেন্সি। পয়সা পাচ্ছে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারগুলো। দাম বাড়ছে ইন্টারনেটের।

৫৯১.

ওটা একটা অফিসের চিত্র হলেও দেশের বড় বড় সার্ভিস প্রোভাইডারদের ভেতর ট্রাফিক ঘুরে আসতো ওই দেশের বাইরে থেকে। দেশের ‘আপ-স্ট্রীম’ ** ব্যান্ডউইডথ প্রোভাইডাররা বুঝতো ব্যাপারটা। তারা মনে করতো – ভালোই তো, আমার কি? আপ-স্ট্রীম আর ডাউন-স্ট্রীমের জন্য পয়সা পাচ্ছি খালি খালি। কারণ, আমরা কথা বলছি না নিজেদের মধ্যে। এভাবেই চলেছে অনেক অনেক বছর। বুদ্ধিমান আইএসপিরা নিজেদের মধ্যে একটা ব্যবস্থা করে নিয়েছিল এর মধ্যে। চাহিদা বাড়ছিলো লোকাল ব্যান্ডউইডথের। কোন কোন আইএসপি’র দেশের ভেতরের চাহিদা বেড়ে দাড়ালো পঞ্চাশ শতাংশের ওপর। ধরা যাক ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার ‘ক’য়ের গ্রাহক হাজার দুয়েক। হিসেব করে করে দেখা গেলো – তার আইপি ট্রানজিট মানে ব্যান্ডউইডথ কিনতে হয় দু গিগাবিটস/সেকেন্ড। সিষ্টেম অ্যাডমিনিষ্ট্রেটর প্যাকেট অ্যানালাইসিস করে দেখলেন সিংগাপুর বা ইতালিতে পাঠানো ট্রাফিকের মধ্যে অর্ধেকেরই ডেস্টিনেশন কিন্তু বাংলাদেশের অন্যান্য আইএসপিতে। দেশে অন্যেরা যুক্ত থাকলে ব্যান্ডউইডথ কিনতে হতো মাত্র এক গিগাবিটস/সেকেন্ডের। মানে বাকিটা সিষ্টেম লস।

সব ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার + বিডাব্লিউএ + মোবাইল অপারেটর ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জে এলে কমে আসবে দাম, ল্যাটেন্সি। চলে আসবে আকামাই, স্পীডেরা, গুগল, ফেসবুক।

সব ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার + বিডাব্লিউএ + মোবাইল অপারেটর ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জে এলে কমে আসবে দাম, ল্যাটেন্সি। চলে আসবে আকামাই, স্পীডেরা, গুগল, ফেসবুক।

৫৯২.

এর সহজ ‘ট্রান্সলেশন’ হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রায় দামী আইপি ট্রানজিট কিনতে হচ্ছে অর্ধেকটা ***। কষ্টের কথা হচ্ছে বাকিরাও পাঠাচ্ছেন ওই বাইরে। সমস্যা একটাই। সবাই যুক্ত নেই দেশের ভেতর। সরকার নয়, ইউএনডিপি প্রজেক্টের পয়সায় তৈরি হলো যুক্ত হবার একটা প্ল্যাটফর্ম। এটাকে বলা হয় ‘ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ’। দেশীয় ইন্টারনেট ট্রাফিক ‘এক্সচেঞ্জ’ হয় যেখানে সেটাই হচ্ছে সংক্ষেপে আই-এক্স, ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ। ধারনা করা যায়, বাংলাদেশ যদি সর্বসাকুল্যে চল্লিশ গিগাবিটস/সেকেন্ডের আন্তর্জাতিক ব্যান্ডউইডধ কেনে, সেটা হয়ে যাবে আসলে – বিশ গিগাবিটস/সেকেন্ডে। দেশের ভেতরে যেই পরিমাণ অডিও ভিডিও আর ডাটা ফাইল শেয়ার করছেন নিজেদের মধ্যে, এই ট্রাফিক বাড়তে বাধ্য। আমাদের বাংলা কনটেন্ট প্রোভাইডাররা, মূলত: পত্রিকাগুলো দেশের ভেতরে হোস্টিং করলে – বাইরের ব্যান্ডউইডথ কিনতে হবে আরো কম। যেমনটি, কোরিয়াকে বাইরের ব্যান্ডউইডথ কিনতে হয় খুবই কম।

৫৯৩.

পরের সমস্যা আরো গুরুতর। টেলিকম রেগুলেটরের ‘এনডোর্সমেন্ট’ না থাকায় এলো না বড় বড় প্রোভাইডাররা। ওই আই-এক্সয়ে। অথচ, বিশাল ট্রাফিক বহন করছে তারা। দেশের ভেতরের সাইটে যেতেও হাজারো ল্যাগ। দেশের ভেতর ন্যাশন্যাল পোর্টাল – সেটাও আসছে ঢিমে তালে। দেশের ভেতর থেকে। মিটিংয়ে ডাকা হলো তাদের। আলাপ হলো অনেক কিছু। এধরনের পিয়ারিং অন্যান্য দেশে হয় সমঝোতার ভিত্তিতে। আপনাদের করতে সমস্যা কোথায়? রেগুলেটর বললে করবেন তারা। তাদের উত্তর। যেহেতু এটাতে একটা লাইসেন্সিং রেজিম আছে, তাই ‘নন’ লাইসেন্সড পিয়ারিং পয়েন্টে যুক্ত হয়ে রেগুলেটরের বিরাগভাজন হতে চান না বাইরের অপারেটররা। কথা ঠিক। মিলিয়ন ডলার ইনভেস্টমেন্ট তাদের। তাই সবকিছু ছেড়ে দিয়ে আছেন রেগুলেটরের ওপর। এখানেই কাজ হচ্ছে রেগুলেটরের। যাই করতে চাইবেন – সবকিছুতে লাইসেন্স, বের হয়ে আসতে হবে ব্যাপারটা থেকে।

৫৯৪.

ব্যক্তিগতভাবে আইএসপি’র পিয়ারিং পয়েন্ট নিয়ে ‘লাইসেন্স’ দেবার পক্ষপাতি ছিলাম না মোটেই। এগুলো সাধারণত: কোম্পানীগুলো নিজেদের মধ্যে ‘মেমোরান্ডাম অফ আন্ডারস্ট্যান্ডিং’ ওপর করে থাকে। এক আইএসপি’র গ্রাহক যদি তার বন্ধুর সাথে অনলাইন গেম খেলতে চায় – তাহলে সেটাকে কেন ঘুরে আসতে হবে ইটালী থেকে? অথচ দুজনই বসে আছেন ঢাকায়। ‘সাচ আ ওয়েস্ট অফ এক্সপেনসিভ ব্যান্ডউইডথ’। ন্যাশন্যাল পিয়ারিং পয়েন্ট নিয়ে সচরাচর কোন রেগুলেশন দেখা যায় না। আমার জানামতে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে ব্যাপারটা রয়েছে। ওই একটাই। টেলিযোগাযোগ রেগুলেশনের ক্ষেত্রে অন্যান্য দেশে এই পিয়ারিংকে ছেড়ে দিয়ে রেখেছে কোম্পানীগুলোর ব্যবসায়িক সিদ্ধান্তে ওপর। চলে যাচ্ছে কোম্পানী অ্যাক্টে। পিয়ারিং করে অর্ধেক আন্তর্জাতিক ব্যান্ডউইডথ বাঁচাতে চাইবে সবাই।

৫৯৫.

আমাদের টেলিযোগাযোগ অ্যাক্টটা যুগোপযোগী হয়নি এখনো। ওখানে বলা হয়েছে – সব মানে সব ধরনের টেলিযোগাযোগ সেবার জন্য লাগবে ‘লাইসেন্স’। এব্যাপারটা আটকে রেখেছে অনেক ইনোভেশনকে। আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ নীতিমালাগুলো পাল্টে গেছে অনেক আগেই। ডি-রেগুলেশন ওপরে তুলছে বুদ্ধিমান দেশগুলোকে। লাইসেন্সের দরকার নেই সবকিছুতে। ভেবে দেখুন ওয়াই-ফাই স্পেকট্রামের কথা? ডি-রেগুলেটেড স্পেকট্রাম, ব্যবহার করো ইচ্ছেমতো। মনে আছে – বিশ বছর আগের এফসিসি’র  **** যুগান্তকারী ওই সিদ্ধান্তের কথা? উদ্ভাবনার জন্য ছেড়ে দাও এই দুশো মেগাহার্টজের ফ্রিকুয়েন্সী। অথচ এই ফ্রিকুয়েন্সী বেচলে পেতো বিলিয়ন ডলার।

৫৯৬.

কি হলো পরে? এই ‘ডি-রেগুলেটেড’ স্পেকট্রামকে ঘিরে তৈরি হয়েছে ট্রিলিয়ন ডলারের ইনডাস্ট্রি। এফসিসি ওই টাকাটা ছেড়ে দেয়াতে তৈরি হয়েছে বিশাল বিশাল টেলিযোগাযোগ ম্যানুফ্যাক্চারিং ইনডাস্ট্রি। শুধু ওয়াই-ফাই রাউটার নয়, নন-লাইসেন্সড ব্যান্ড নিয়ে তৈরি হয়েছে হাজারো প্রোডাক্ট। তৈরি হয়েছে হাজারো কর্মসংস্থান, বেড়েছে জিডিপি – বেড়েছে কর্মচাঞ্চল্যতা। সবচেয়ে বড় কথা, মানুষ পেয়েছে স্বাধীনতা। মনে চাইলো, কিনে লাগিয়ে ফেললেন একটা রাউটার। লাগছে না কোন এনওসি *****। কম ঝামেলা হয়নি মানুষকে বোঝাতে। নন-লাইসেন্সড ব্যান্ডের সম্পর্কিত সুবিধা দেখে বুদ্ধিমান দেশগুলো বাড়াচ্ছে ওই স্পেকট্রামের রেঞ্জ। আমারো প্রস্তাবনা থাকবে ওখানে। সরকার তো মানুষের জন্য, তাই নয় কি? আর সেকারণে আরো ১০০ মেগাহার্টজ নন-লাইসেন্সড স্পেকট্রাম ছেড়েছে এই মার্চে, ৫ গিগাহার্টজ ব্যান্ডে। ৫-০ ভোটে কমিশন ছেড়ে দেয় ওই বহুমূল্যের স্পেকট্রাম – বিনামূল্যে। আরো ছাড়বে পাঁচশো মেগাহার্টজ! আর সেকারণে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উদ্যোক্তাদের জন্য স্বর্গরাজ্য। আমাদের কাজ করেছি ওই দুহাজার নয়ে। দেখুন, সেটার প্রতিফলন আমাদের ন্যাশন্যাল ফ্রিকুয়েন্সী অ্যালোকেশন টেবিল। চেষ্টা করেছিলাম ৫ গিগাহার্টজ খুলতে, সম্ভব হয়নি ওই সময়ে। আশা করছি হবে এখন। 

৫৯৭.

যখন ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) লাইসেন্সটা ড্রাফট করা হয়, সেখানে জোর করেই ঢুকিয়েছিলাম পিয়ারিংয়ের ব্যাপারটা। বলা হয়েছিল পিয়ারিং করতে হবে আইআইজি’দের মধ্যে। তবে সেখানে এক নীতিনির্ধারণী কর্তাব্যক্তি সেটাকে কমিশনের নির্দেশনার ওপর ছেড়ে দিতে বলেছিলেন। ফলাফল, যা হবার তাই হলো। নির্দেশনা গেলো না আর। অনেক কষ্টে পরে সেই নির্দেশনা দেয়া স্বত্বেও বিটিসিএল এলো না প্রাইভেট আইআইজি’র সাথে পিয়ারিং করতে। কথা বললাম। বিটিসিএলের ভয়, তাদের ব্যান্ডউইডথ যদি নিয়ে নেয় প্রাইভেট আইআইজি? ওদের বুদ্ধি বেশি! অথচ, ন্যাশন্যাল ‘পিয়ারিং’ হচ্ছে দেশের ভেতরের ব্যান্ডউইডথ নিয়ে, আন্তর্জাতিক আইপি ট্রানজিট নিয়ে নয়। তারা অবশ্য ‘নতুন প্রযুক্তি’ বলে এড়িয়ে গিয়েছিলো ব্যাপারটা। অথচ, পুরো আফ্রিকাতেই এই ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ রয়েছে পচিশটার বেশি। আহা, দেখতে পেতেন যদি – আফ্রিকা পাল্টাচ্ছে কতো দ্রুত?

৫৯৮.

দেশের ভেতরে হোস্টিং সার্ভিস নিয়ে একই সমস্যা। হাজারো মানুষ জিজ্ঞাসা করছে একটা জিনিস। ভাই, ডাটা সেন্টার করবো – লাইসেন্স দেন একটা। আমার কথা, শুরু করেন। নীতিমালা তৈরি হলে ‘কনসাল্ট’ করা হবে আপনার সাথে। নীতিমালা তৈরি করতে লাগবে দুবছর, তার জন্য তো বসে থাকবেন না উদ্যোক্তারা। পরে নীতিমালা বানানোর সময় গনশুনানীতে – নেয়া হবে উনার অভিজ্ঞতা। কোম্পানী নীতিমালা অনুযায়ী ‘আর্টিকেল অফ অ্যাসোশিয়েশন’ আর ‘মেমোরান্ড্যাম অফ অ্যাসোশিয়েশনে’ কি কি করতে চান সেটা লিখে আবেদন করুন আরজেএসসি’তে। উদ্ভাবনাকে ব্যাহত না করার জন্য রয়েছে ‘ফার্স্ট রাইট অফ রিফিউজাল’। বিপদে পড়বেন না আপনি।

৫৯৯.

আরেকটা প্রশ্ন, বাংলাদেশ থেকে অনলাইন পত্রিকা পড়ছেন যারা, তাদেরকে বের হতে হবে কেন দেশ থেকে? কেনই বা পাড়ি দিতে হবে সাবমেরিন কেবল? দেশে হোস্টিং হলে এক ক্লিকেই চলে আসবে ‘প্রথম আলো’ আর ‘ইত্তেফাক’। দেশে হোস্টিংয়ে খরচ বেশি, অনুযোগ অনেকের। ব্যবহার শুরু না করলে দাম কমবে কিভাবে? ইকোনোমি অফ স্কেলের ব্যাপার জড়িত না? আরো কয়েকটা সাবমেরিন কেবল না আসা পর্যন্ত একটা সস্তা ‘মিরর’ হোস্টিং রাখতে পারেন বিদেশে। আবার সাবমেরিন কেবল কাটলে সবাই আগের মতোই অ্যাক্সেস পাবেন পত্রিকাগুলোতে। মনেই হবে না কেটেছে কেবল। বিদেশের ইন্টারনেট নেই তো হয়েছে কি? দেশে তো আছে।

৬০০.

ধারনা করুন বাংলা কনটেন্ট বেড়েছে কতো? অনেক! নিয়ে আসুন আপনার বাংলা কনটেন্টকে। দেশে। ইন্টারনেটের দাম কমানো সম্ভব এখানেই। এজন্যই ‘পিয়ারিং’ দরকার দেশে। সাইটগুলোর অ্যাডমিনিষ্ট্রেটরদের দেখা পাবেন রাস্তায়, বাজারে, দেশের ভেতর। দেখা হবে কফিশপে। কথা হবে মুখোমুখি। গুগল আর ফেসবুক নিজেই চলে আসবে তাদের ‘মিরর’ সার্ভার নিয়ে ঢাকায়। পুরো ইন্টারফেস হবে বাংলায়। ওরা আর যাই বুঝুক, ব্যবসা বোঝে ভালো – আমাদের চেয়ে। ইন্টারনেট দাম কমবে না মানে? বরং, বাইরে থেকে মানুষ কিনতে আসবে আমাদের আইপি ট্রানজিট। সমান সমান ট্রাফিক হলে কাটাকাটি। আমার বিশ গিগাবিট ট্রাফিক নিয়ে দাও তোমার বিশ গিগাবিট ট্রাফিক। ব্যবসার ভাষায় একে বলে ‘ফ্রী সেটলমেন্ট’। চমত্কার একটা মার্কেটপ্লেস তৈরি হয়ে যাবে এই বাংলাদেশে। টায়ার ১ না হলেও টায়ার ২ লেভেলের ট্রাফিক জেনারেট করবে এই বাংলাদেশ। ‘অ্যানালাইসিস’ দেখে বলছি। পৃথিবীব্যাপী বাংলাভাষাভাষীদের চাহিদার ফলে আন্তর্জাতিক টায়ার ১, ২ লেভেলের ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ পয়েন্ট তাদের বাড়তি ট্রাফিক কিনতে আসবে বাংলাদেশে।

৬০১.

বাংলাদেশের ইন্টারনেটের গতি নিয়ে অনেক কথা শুনি। সেটা অনেকটাই সত্যি। অনেকদেশ ঘুরেছি। আমাদের ‘প্রদর্শিত’ গতি এই যুদ্ধবিদ্ধস্ত আইভরি কোস্ট থেকে যে ভালো নয়, সেটা বলতে পারি হলফ করে। এই গতির মূলে রয়েছে দেশের ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ পয়েন্টগুলো। সবাই যুক্ত থাকলে এক ক্লিকেই চলে আসে দেশের কনটেন্ট। টাইম-আউট ব্যাপারটাও দেখবেন না কখনো। ‘পিং’ মানে নেটওয়ার্ক ঠিক আছে কি না – দেখার ওই টূলটা ফেরত দেবে কয়েকশো মিলিসেকেন্ডে। ইউটিউব বিশাল ‘ক্যাশে’ ইঞ্জিন বসাবে আই-এক্সয়ে। আকামাই, স্পীডেরা, তাদের কনটেন্ট ডিসট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক নিয়ে আসবে আমাদের দেশেই। কথা দিচ্ছি! ইন্টারনেট সাবস্ক্রিপশনে ‘হকিস্টিক ফেনোমেনন’ উপেক্ষা করতে পারছে না কেউ!

৬০২.

আমাদের সবকিছুতে লাইসেন্স লাগে বলে এই ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ পয়েন্ট নিয়েও তৈরি হয়েছে লাইসেন্স। সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতাম লাইসেন্সটা নেবার ব্যপারে। বিজনেস কেস ওভাবে না থাকায় এগিয়ে আসছিলেন না উদ্যোক্তারা। এটা নিয়ে প্রথমদিকে সমস্যা থাকলেও সেটা মেটানো হয়েছে সাম্প্রতিক সময়ে। লাইসেন্স নিয়েছেন দুটো কোম্পানী। সংখ্যা দিয়ে কথা বলি বরং। কে কতো আন্তর্জাতিক ব্যান্ডউইডথ বাঁচাচ্ছে তাদের দেশের আই-এক্স দিয়ে।

কোরিয়ার ‘কেআইএনএক্স’ বাঁচাচ্ছে ৫৬২ গিগাবিটস আন্তর্জাতিক ব্যান্ডউইডথ, প্রতি সেকেন্ডে।
জাপানের ‘জে-আই-এক্স’ ২৫০ গিগাবিটস বাঁচাচ্ছে – প্রতি সেকেন্ডে।
হংকংয়ের ‘এইচকে-আই-এক্স’ প্রতি সেকেন্ডে কম কিনছে ৫৬২ গিগাবিটস।
অ্যামস্টারডামের অ্যাম-আই-এক্স ২৮০০ গিগাবিটসের নিচে কথাই বলছে না! হ্যা, প্রতি সেকেন্ডে কিন্তু!

আর বাংলাদেশ বাঁচাচ্ছে কত – আপনারাই বলবেন আমাকে। না হলে আমি তো আছিই। 

[ক্রমশ:]

বিশেষ দ্রষ্টব্য: লেখাগুলো আমার আগের আর বর্তমান প্রতিষ্ঠানের ভিউ পয়েন্ট নয়। নিতান্তই ব্যক্তিগত। 


* তাদের কতজন দেশের বাইরে হোস্টিং করছেন সেই তর্কে যাব না আমি। আসল কথা, তাদের তৈরি কনটেন্টের ভোক্তা কোথায় বেশি? বাংলাভাষাবাসী দেশের ভেতর না বাইরে বেশি সেটা জানি সবাই। খরচ কমিয়ে দক্ষতা বাড়ানোর জন্য দেশের ভেতর আর বাইরে কনটেন্ট 'রেপ্লিকশন' থাকা জরুরী
** যাদের মধ্যমে আইপি ট্রানজিট ব্যান্ডউইডথ আসা যাওয়া করছে দেশের বাইরে
*** ওই উদাহরণের আইএসপি'র ক্ষেত্রে
**** ফেডারেল কম্যুনিকেশন কমিশন
***** নো অবজেক্টশন সার্টিফিকেট, ওটা যোগাড় করতে গিয়ে ভুলেও কিনতেন না রাউটার
Advertisements

Read Full Post »

%d bloggers like this: