Feeds:
Posts
Comments

Posts Tagged ‘নেট নিউট্রালিটি’

Freedom of connection with any application to any party is the fundamental social basis of the internet. And now, is the basis of the society built on the internet.

– Tim Berners-Lee

save0০১.

ইন্টারনেট নিয়ে সখ্যতা আমাদের অনেক অনেক দিনের। আমাদের মানে আমাদের মতো বুড়োদের। ইন্টারনেট বড় হয়েছে আমাদের চোখের সামনেই। বিরানব্বই থেকে অফলাইন ইন্টারনেট নিয়ে খোঁচাখুচি। ব্রাউজও করতে পারতাম এই অফলাইন ইন্টারনেটে। ভাবা যায়? ভাবখানা কিছুটা আজকের পুশ-পুল এসএমএসের মতো। যাই হোক – জানা যেতো অনেক কিছু। সত্যি কথা বলতে – ‘লোকাল ইন্টারনেট’ মানে মোডেম দিয়ে এক বাসা থেকে আরেক বাসায় ফাইল পাঠানো শুরু হয়েছে বহু আগেই। তিরাশি সালের কথা। হাতে পড়লো একটা ‘কমোডোর’ কম্পিউটার। মোডেমসহ। পাল্টে গেল আমাদের দুনিয়া। এক সময় চালু হলো বুলেটিন বোর্ড সার্ভিস। এই ঢাকায়! মনে আছে ‘ওয়াইল্ড ক্যাট’এর প্রম্পটের কথা? কথাটা আপনাদের কাছে ‘হিব্রু’ মনে হলে বুঝতে হবে আসলেই বুড়ো হয়েছি আমরা।

০২.

আজকের ইন্টারনেট পাল্টে দিচ্ছে পৃথিবীকে। কোথায় কি হলো সেটা সরকার জানার আগেই জানে মানুষ। মানে জনগণ। জনগণ তার মুখ খুলতে পারে এই ইন্টারনেটের কারণে। ‘আরব বসন্তে’র দেখেছেন কি, ওটাতো আইসবার্গের ছোট্ট ‘নিষ্পাপ’ মাথা। আজকের গনতন্ত্রের বিশাল অংশ চলছে এই ইন্টারনেটকে ঘিরে। আল গোরের ‘ইন্টারনেট আর ভবিষ্যত গনতন্ত্র’ নিয়ে বক্তৃতা কিছুটা গল্প দিলেও তার সবকিছু শুরু কিন্তু একটা সহজ ‘টার্মেনোলোজি’ নিয়ে। ‘নেট নিউট্রালিটি’। পুরো ইন্টারনেট ‘সরব’ এই গল্পটা নিয়ে। হ্যা, প্রায় একযুগ ধরে। আমরা যারা ভোক্তা, তাদের ভয় একটাই। কোনদিন না বন্ধ হয়ে যায় সব। আমার প্রিয় সাইট হয়তোবা হারিয়ে যাবে এই টেলকোদের ধাক্কাধাক্কিতে। সাইট থাকবে, কিন্তু সেটাকে আর বইবেনা (মানে আর ‘ক্যারি’ করবে না) আমাদের ‘টেলকো’রা। কারণ বনিবনা হয়নি পয়সার ভাগ বাটোয়ারাতে। অপারেটর ‘ক’ এর ওপর দিয়ে ওই অ্যাপ্লিকেশন বা সাইট আসতে হলে পয়সা দিতে হবে ঘাটে ঘাটে। সব দোষ জর্জ অরওয়েলের। কেন লিখতে গেলেন বইটা? মানে ১৯৮৪ নামের বইটা।

[ক্রমশ:]

Advertisements

Read Full Post »

%d bloggers like this: