Feeds:
Posts
Comments

Posts Tagged ‘লোকাল লুপ আন-বান্ডল’

A conspiracy is nothing but a secret agreement of a number of men for the pursuance of policies which they dare not admit in public.

– Mark Twain

৫৩০.

ধরা যাক আপনি আইএসপি, চালাতে চান ডিএসএল। টিএন্ডটির লোকাল লুপ (কপার ইনফ্রাস্ট্রাকচার) আন-বান্ডল মানে খুলে দিতে হবে প্রতিযোগীদের কাছে। মুনাফার দামে নয়। জনসাধারণের কাছে উন্মুক্ত করতে হবে তার সব রেফারেন্স ইন্টারকানেকশন অফার। ‘আরআইও’, রেফারেন্স ইন্টারকানেকশন অফার হচ্ছে গিয়ে আপনার নেটওয়ার্কের এলিমেন্টগুলোতে প্রতিযোগীদের এক্সেস দিতে গিয়ে তার দাম জানাতে হবে সবাইকে। অনেক দেশে রেগুলেটর সেটাকে দেখে দেয় আগে থেকে। বড় অপারেটর আবার দাম কমিয়ে বাকিদের মার্কেট থেকে উধাও করে না দিতে পারে সেজন্যও আছে ব্যবস্থা। ধরে দেয়া হবে তার দাম। নামতে পারবে না ওখান থেকে।

৫৩১.

থাইল্যান্ডে একটা রেগুলেটরি কোর্সে গিয়েছিলাম এবছর। ওদের ‘আনফেয়ার কম্পিটিশন নীতিমালা ২০০৬’ বলছে একই কথা। পঁচিশ শতাংশের ওপরে গেলেই ওই অপারেটরের ওপর নির্দেশনা আর নজরদারি আলাদা। হোলসেল এক্সেসে একেকজনকে একেক দাম আর শর্ত দিলেই বিপদে পড়বে সে। ‘বটলনেক রিসোর্স’গুলোতে (হতে পারে ব্যাকহল) এক্সেস কমিয়ে দিলে ধরবে রেগুলেটর। দরকারী তথ্য গোপন করলে জবাবদিহিতার মধ্যে পড়তে হবে ডোমিন্যান্ট অপারেটরকে। অন্যকে দিলাম না এক্সেস, টেকনিক্যালি সমস্যা করে রাখলাম – সেটা প্রমাণিত হলে আরো বিপদ। খুচরা ব্যবস্যায় এমন দাম দিলাম – বাকিরা বিপদে। সেটা পারবে না ডোমিন্যান্ট অপারেটর। একটা সার্ভিসের সাথে আরেকটা বান্ডলিং অথবা এটা না কিনলে ওটা পাবেনা বললেই ‘মার্কেট অ্যাবিউজে’ পড়ে যাবে সে। ভালো চলছে প্রোডাক্টটা, কমিয়ে দিলাম সরবরাহ – ক্ষমতার অপব্যবহার হিসেবে ধরা হবে সেটাকে। কয়েকটা কোম্পানি মিলে যদি দাম এক রাখে, তাহলেও একই অবস্থা।

৫৩২.

মোদ্দা কথা – সুস্থ্য প্রতিযোগিতা নীতিমালা আর বড়দের ক্ষমতার অপব্যবহারগুলোকে নজরদারিতে নিয়ে এলে অপারেটররা নিজেরাই দাম কমিয়ে আসল দামের কাছে নিয়ে আসবে। আসল মানে প্রোডাকশন কষ্টের কাছাকাছি। সুস্থ প্রতিযোগিতার নীতিমালা জানে কিন্তু রেগুলেটর। ওই নীতিমালা মানলে খরচ কমে আসবে অপারেটরদের। নিট রেজাল্ট – দাম কম। সুস্থ্য প্রতিযোগিতার মাপার অংক আছে একটা। নাম হার্সম্যান হারফিণ্ডল ইনডেক্স। সংক্ষেপে এইচএইচআই। এর মান শূন্য হলে বোঝা যায় বাজারে ছোট কোম্পানি আছে অনেকগুলো। দশ হাজার হলে বাজারটা চলছে পুরো মনোপলিতে।

৫৩৩.

ধরে নেই – আমাদের সম্পর্কিত বাজার হচ্ছে মোবাইল সার্ভিস। বাজারে আছেও চার চারটা কোম্পানি। মার্কেট শেয়ার হিসেবে বড় অপারেটরের আছে পঞ্চাশ ভাগ। বাকিদের বাজার দখল আছে ৩০, ১০ আর ১০ শতাংশে। বাজারের এইচএইচআই ইনডেক্স হচ্ছে গিয়ে ২,৫০০ %২০ ৯০০ %২০ ১০০ %২০ ১০০ = ৩৬,০০। মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে যদি দুটো কোম্পানি একত্রীভূত (মার্জার) হতে গেলে এধরনের একটা হিসেব করে সেটার বিপদসীমা পার না হলে ভালো সবার জন্য। সবুজ বাতি পায় কোম্পানিগুলো। এক হাজারের নিচে হলে ধরা হয় প্রতিযোগিতা কম। হাজার থেকে আঠারোশো – মধ্যম আর তার ওপরে গেলেই প্রতিযোগিতা আছে বাজারে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে একই ধরনের তবে সেটার গল্প কিছুটা বড়। নিয়ে আসবো আরেকদিন। ‘এসএমপি’ অপারেটরের মার্কেট অ্যাবিউজ বা তার ক্ষমতার অপব্যবহার নিয়ে আসছি সামনে। নাহলে রেগুলেটর জানবে কিভাবে? মানে, কোথায় সমস্যাটা?

[ক্রমশঃ]

Advertisements

Read Full Post »

%d bloggers like this: