Feeds:
Posts
Comments

Archive for June, 2014

A conspiracy is nothing but a secret agreement of a number of men for the pursuance of policies which they dare not admit in public.

– Mark Twain

৫৩০.

ধরা যাক আপনি আইএসপি, চালাতে চান ডিএসএল। টিএন্ডটির লোকাল লুপ (কপার ইনফ্রাস্ট্রাকচার) আন-বান্ডল মানে খুলে দিতে হবে প্রতিযোগীদের কাছে। মুনাফার দামে নয়। জনসাধারণের কাছে উন্মুক্ত করতে হবে তার সব রেফারেন্স ইন্টারকানেকশন অফার। ‘আরআইও’, রেফারেন্স ইন্টারকানেকশন অফার হচ্ছে গিয়ে আপনার নেটওয়ার্কের এলিমেন্টগুলোতে প্রতিযোগীদের এক্সেস দিতে গিয়ে তার দাম জানাতে হবে সবাইকে। অনেক দেশে রেগুলেটর সেটাকে দেখে দেয় আগে থেকে। বড় অপারেটর আবার দাম কমিয়ে বাকিদের মার্কেট থেকে উধাও করে না দিতে পারে সেজন্যও আছে ব্যবস্থা। ধরে দেয়া হবে তার দাম। নামতে পারবে না ওখান থেকে।

৫৩১.

থাইল্যান্ডে একটা রেগুলেটরি কোর্সে গিয়েছিলাম এবছর। ওদের ‘আনফেয়ার কম্পিটিশন নীতিমালা ২০০৬’ বলছে একই কথা। পঁচিশ শতাংশের ওপরে গেলেই ওই অপারেটরের ওপর নির্দেশনা আর নজরদারি আলাদা। হোলসেল এক্সেসে একেকজনকে একেক দাম আর শর্ত দিলেই বিপদে পড়বে সে। ‘বটলনেক রিসোর্স’গুলোতে (হতে পারে ব্যাকহল) এক্সেস কমিয়ে দিলে ধরবে রেগুলেটর। দরকারী তথ্য গোপন করলে জবাবদিহিতার মধ্যে পড়তে হবে ডোমিন্যান্ট অপারেটরকে। অন্যকে দিলাম না এক্সেস, টেকনিক্যালি সমস্যা করে রাখলাম – সেটা প্রমাণিত হলে আরো বিপদ। খুচরা ব্যবস্যায় এমন দাম দিলাম – বাকিরা বিপদে। সেটা পারবে না ডোমিন্যান্ট অপারেটর। একটা সার্ভিসের সাথে আরেকটা বান্ডলিং অথবা এটা না কিনলে ওটা পাবেনা বললেই ‘মার্কেট অ্যাবিউজে’ পড়ে যাবে সে। ভালো চলছে প্রোডাক্টটা, কমিয়ে দিলাম সরবরাহ – ক্ষমতার অপব্যবহার হিসেবে ধরা হবে সেটাকে। কয়েকটা কোম্পানি মিলে যদি দাম এক রাখে, তাহলেও একই অবস্থা।

৫৩২.

মোদ্দা কথা – সুস্থ্য প্রতিযোগিতা নীতিমালা আর বড়দের ক্ষমতার অপব্যবহারগুলোকে নজরদারিতে নিয়ে এলে অপারেটররা নিজেরাই দাম কমিয়ে আসল দামের কাছে নিয়ে আসবে। আসল মানে প্রোডাকশন কষ্টের কাছাকাছি। সুস্থ প্রতিযোগিতার নীতিমালা জানে কিন্তু রেগুলেটর। ওই নীতিমালা মানলে খরচ কমে আসবে অপারেটরদের। নিট রেজাল্ট – দাম কম। সুস্থ্য প্রতিযোগিতার মাপার অংক আছে একটা। নাম হার্সম্যান হারফিণ্ডল ইনডেক্স। সংক্ষেপে এইচএইচআই। এর মান শূন্য হলে বোঝা যায় বাজারে ছোট কোম্পানি আছে অনেকগুলো। দশ হাজার হলে বাজারটা চলছে পুরো মনোপলিতে।

৫৩৩.

ধরে নেই – আমাদের সম্পর্কিত বাজার হচ্ছে মোবাইল সার্ভিস। বাজারে আছেও চার চারটা কোম্পানি। মার্কেট শেয়ার হিসেবে বড় অপারেটরের আছে পঞ্চাশ ভাগ। বাকিদের বাজার দখল আছে ৩০, ১০ আর ১০ শতাংশে। বাজারের এইচএইচআই ইনডেক্স হচ্ছে গিয়ে ২,৫০০ %২০ ৯০০ %২০ ১০০ %২০ ১০০ = ৩৬,০০। মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে যদি দুটো কোম্পানি একত্রীভূত (মার্জার) হতে গেলে এধরনের একটা হিসেব করে সেটার বিপদসীমা পার না হলে ভালো সবার জন্য। সবুজ বাতি পায় কোম্পানিগুলো। এক হাজারের নিচে হলে ধরা হয় প্রতিযোগিতা কম। হাজার থেকে আঠারোশো – মধ্যম আর তার ওপরে গেলেই প্রতিযোগিতা আছে বাজারে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে একই ধরনের তবে সেটার গল্প কিছুটা বড়। নিয়ে আসবো আরেকদিন। ‘এসএমপি’ অপারেটরের মার্কেট অ্যাবিউজ বা তার ক্ষমতার অপব্যবহার নিয়ে আসছি সামনে। নাহলে রেগুলেটর জানবে কিভাবে? মানে, কোথায় সমস্যাটা?

[ক্রমশঃ]

Advertisements

Read Full Post »

No policy that does not rest upon some philosophical public opinion can be permanently maintained.

Abraham Lincoln

৫২৬.

আরেকটা দাম কমানোর টুলে আসি আজ। এটা আরেকটা রেগুলেটরি টুল, নাম এসএমপি। মানে সিগনিফিকেন্ট মার্কেট পাওয়ার। বাজারে প্রতিযোগিতা ঠিকমতো আছে কিনা সেটা দেখার দ্বায়িত্ব রেগুলেটরের। একাজে ‘কম্পিটিশন এজেন্সী’ একটা বিশেষায়িত সংস্থা। ওটা যতদিন না আসছে – ততোদিন টেলিযোগাযোগ রেগুলেটরের কাজ এটা। ডাব্লিউটিও, ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন এটা নিয়ে কাজ করছে অনেকদিন ধরে। কোন দেশে ঠিক প্রতিযোগিতামূলক অবস্থা না থাকলে ক্ষতি সবারই। ক্ষতি ছোট কোম্পানিগুলোর। সবচেয়ে ক্ষতি গ্রাহকের। গ্রাহক কখনো জানতে পারেনা প্রোডাক্টটার আসল দাম কতো। বাজার হারায় তার দক্ষতা। তৈরী হয়না বিকল্প পণ্য। ফলে দাম কমে না ইন্টারনেটের মতো অতি প্রয়োজনীয় জিনিসের।

৫২৭.

সাপ্লাই সাইডের সমস্যা নিরসনে ডাব্লিউটিও’র চুক্তিতে আমরা আছি কিন্তু। তবে নীতিমালার প্রযোজ্যতা নেই খুব একটা। মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে এটা দেখে কোর্ট, তবে বাকি প্রায় সব দেশে সুস্থ্য প্রতিযোগিতার মানদন্ড নির্ধারণ করে থাকে কোম্পানিগুলোর মার্কেট শেয়ারের ওপর। অনেক কোম্পানি থাকার অর্থ এই নয় যে বাজারে সুস্থ প্রতিযোগিতা বহাল আছে। এটা বের করারও অংক আছে কয়েকটা। দু-একটা কোম্পানি যদি বাজারের বেশি অংশ ধরে রাখে তাহলে দামটাও কিছুটা ‘ডিস্টর্টেড’ হয়ে পড়ে। এখানে জিনিষটার আসল দামটা কতো হওয়া উচিত সেটা বের করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। কয়টা জিনিষের ‘কস্ট-মডেলিং’ করবেন আপনি? দু-একটা কোম্পানির পণ্য বাজারের অধিকাংশ মানুষ ব্যবহার করলে তৈরী হয় সমস্যাটা। বাজারে অন্য কোম্পানিগুলো থাকলেও প্রতিযোগিতামূলক ব্যাপারটা নিয়ে কেউ দেখভাল না করলে ‘মার্কেট ফেইলুর’ হবার সম্ভাবনা বেশি। ফলে – দাম আর কমে না। অথচ, উত্পাদন খরচ এর অর্ধেক। উদাহরন দেই বরং।

৫২৮.

ব্যবস্যা আমার মুড়ির। বাংলাদেশের ষাটভাগ বাজার আমার হাতে। কারণ, আমি ঢুকেছি বাজারে আগে। আমার ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক বড় অনেক। সরকারের সব লোককে চেনা আমার। প্রতিযোগীরা ধারে কাছে নেই আমার। পনেরো দশ শতাংশ নিয়ে আছে বাকিরা। আমার মুড়ি একদম প্রান্তিক পর্যায়ে যায় বলে ওটার বিকল্প হিসেবে ধারে কাছে যেতে পারেনি অন্যরা। পয়সা বেশি থাকায় প্রতিযোগী কোম্পানিগুলোর কয়েকটাকে কিনে নিলাম আমি। সাদা চোখে এখানে সমস্যা না থাকলেও প্রতিযোগিতা না থাকায় দাম বেশি থাকাটাই স্বাভাবিক। কম্পিটিশন এজেন্সি থাকলে কোন কোম্পানি বাজারের একটা নির্দিষ্ট শতাংশের ওপরে গেলেই তার মুনাফা বের করে সেটার আসল দামের কাছাকাছি একটা দাম বেঁধে দিতো। টেলিকমে কম্পিটিশন রেগুলেশন আরো ভয়াবহ। ডোমিন্যান্ট মানে বড় অপারেটরের হাজারো আন্ডারটেকিং। আর তার বড় হবার ক্ষমতাকে অপব্যবহার করলে হয় কোর্ট কাচারী।

৫২৯.

সেই উনিশশো সাতানব্বইতে ইউরোপিয়ান কমিশন চারটা বাজার নির্ধারণ করে এই টেলিকমেই। মোবাইল, ফিক্সড লাইন মানে টিএন্ডটি, লীজড লাইন আর ইন্টারকানেকশন মার্কেট যার মাধ্যমে যুক্ত থাকে অপারেটররা দেশে বিদেশে। কারো বাজার কোন ভাবে ২৫% বা ওর ওপরে গেলেই তাকে এসএমপি মানে সিগনিফিকেন্ট মার্কেট পাওয়ার হিসেবে ধরা হয়। এসএমপি হলে তার নেটওয়ার্কে অন্য প্রতিযোগীরা যারা ঢুকবে – তাদেরকে দিতে হবে আসল দামে। প্রোডাকশন কষ্টের কাছাকাছি। মুনাফার দামে নয়। তার নেটওয়ার্ক এলিমেন্টগুলোতে আলাদাভাবে এক্সেস চাইলে সেটা দিতে বাধ্য।

[ক্রমশঃ]

Read Full Post »

Kings will be tyrants from policy when subjects are rebels from principle.

– Edmund Burke, Reflections on the Revolution in France

৫২১.

ফিরে আসি সমস্যায়। বছর তিনেক আগে ইউটিউব নিয়ে আলাপ হচ্ছিলো গুগলের সাথে। এরপর মাঝে মধ্যে কথা হতো বিভিন্ন ব্যাপার নিয়ে। আমাদের ধর্মীয় ব্যাপারগুলোতে কনটেন্ট সেন্সরশীপ নিয়ে আলাপ করতে গিয়ে মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের কিছু রেগুলেশন নিয়ে ঘাটতে হচ্ছিলো। অনেকবারই। কনটেন্ট মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে থাকলে আমাদের নীতিমালা খাটে না, তবে সেটা অন্যদেশে থাকলে গুগল মানবে সেদেশের নীতিমালা। কথা চলছিলো টুইটার আর ফেইসবুকের সাথে। একই টাইমলাইনে। শুরু হয়েছিলো শর্টকোড নিয়ে। ওদের অফিসেও গিয়েছিলাম মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে। ছুটিতে থাকার সময়ে। প্রযুক্তিগত দিক থেকে – বাংলাদেশে গুগল সার্ভিসগুলোর কনটেন্ট হোস্টিং করলে লাভ সবার। সাবমেরিন ক্যাবল দিয়ে বাইরের ইন্টারনেট ব্যান্ডউইডথ কিনতে হবে কম। কম মানে যা তা কম নয় – অনেক কম। গ্রাহকদের ইন্টারনেট এক্সপেরিয়েন্স হবে পাশের বিল্ডিংয়ের সার্ভারের মতো। ক্লিক করার আগেই হাজির পেজ।

৫২২.

গুগল দেশে আসলে আসবে ফেইসবুক, আর আসবে হাজারো ইন্টারনেট কোম্পানিগুলোর কনটেন্ট ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্ক। কনটেন্ট ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্কের কাজ হচ্ছে গ্রাহকদের কতো কাছ থেকে কতো বেশি কনটেন্ট দেয়া যায়। হাজারো পেটেণ্ট হয়েছে তাদের এই প্রযুক্তিতে। কোম্পানির হোম পেজ একটা। তবে সেটাকে জিয়োগ্রাফিকালি রেপ্লিকেট করা হচ্ছে এলাকা ভিত্তিক। ফলে বাংলাদেশ থেকে কেউ ফেইসবুক ক্লিক করলে সেটা মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে না পাঠিয়ে পাঠাবে আমাদের দেশের ভেতরের কনটেন্ট ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্কে (সিডিএন)। দাম দিতে হবে না দুরের রাস্তার। ফেইসবুকে ক্লিক করলে আপনার আইএসপি পাঠিয়ে দেবে দেশের ভেতরের সিডিএনে। আইআইজি মানে ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে পার হতে হবে না কখনই। দাম কমবে না মানে? সবার চিন্তা একটাই। কতো সহজে আর কতো তাড়াতাড়ি লোড হবে গ্রাহকদের পেজ। তাহলে গ্রাহক থাকবে ওদের পেজে বেশি সময়। কনটেন্ট দেশের ভেতরে থাকাতে ইন্টারনেটের দাম নেমে আসবে অর্ধেকে। সে হিসেব নিয়ে আসছি পরে।

৫২৩.

আজকের টুল, ইন্টারমিডিয়ারী লাইয়াবিলিটি প্রটেকশন। মাফ করবেন। না পারতে – একটা আইনগত সঙ্গা ঝুলি থেকে বের করতে হচ্ছে আমাকে। ইন্টারনেট কোম্পানিগুলো চাওয়া একটাই। অন্যের কনটেন্টের জন্য কোর্ট কাচারী করো না আমাকে। প্রশ্ন হচ্ছে – ‘ইন্টারনেট ইন্টারমিডিয়ারী’ কারা? আর কনটেন্ট তৈরী করে কারা? ইন্টারনেটের কনটেন্ট তৈরী করছে সাধারণ মানুষ। ছবি আপনার। তুলেছেন আপনি। আপলোড করছেন আপনি। গুগল বা ফেইসবুক নয়। অথবা মিডিয়া কোম্পানিগুলো। পত্রিকা অফিস তৈরী করছে তাদের অনলাইন কনটেন্ট। তাহলে ‘ইন্টারমিডিয়ারী’ কারা? আইএসপি, সার্চ ইঞ্জিন আর সোশ্যাল মিডিয়া সার্ভিসটা হোস্ট করে তাদের প্ল্যাটফর্ম দিয়ে। অথবা পাইপ তৈরী করে দিয়ে। সোজা কথায় – যারা এনাবলার। বাজার বা রাস্তা ইজারা দেবার মতো। কে কি বেচবে সেটা তার ব্যাপার।

৫২৪.

ঝামেলাটা অন্য জায়গায়। এদের প্রযুক্তিগত সক্ষমতা থাকায় সরকারগুলো চাপ তৈরী করে এই ইন্টারনেট ইন্টারমিডিয়ারী’দের ওপর। কনটেন্ট সেন্সরশিপের জন্য যারা বলছেন – তারা কিন্তু বলছেন না ওই মানুষটাকে। যিনি আপলোড করেছেন বা লিখেছেন। দেশগুলো দোষ দিচ্ছে ইন্টারমিডিয়ারীদের। অথচ, সে জানেই না কে কি লিখেছে? আবার কোন কোন কনটেন্ট সেন্সরশিপে পড়বে এটার পরিস্কার নীতিমালা না থাকায় ‘ইন্টারমিডিয়ারী’রা দেশগুলোর চাপে মুছে ফেলে কনটেন্ট। তখুনি শুরু হয় আরেক গল্প। মানুষের ভাব প্রকাশের আইনগত অধিকার খর্ব হওয়াতে আন্তর্জাতিকভাবে প্রচন্ড চাপে পড়ে তারা। মানে পুরোপুরি স্যান্ডুইচড! ফলে ইন্টারনেট কোম্পানিগুলো কোনো দেশে আসতে চাইলেও তারা কিছু ব্যাপারে নিশ্চিত হতে চায় আগে ভাগেই। অনেক টাকার ইনভেস্টমেন্ট করতে গেলে আপনিও চাইবেন তাই।

৫২৫.

কনটেন্ট দেশে থাকলে সেই দেশের নীতিমালা মেনে চলবে সে। মানে ইন্টারমিডিয়ারীরা। যারা প্ল্যাটফর্ম দিচ্ছে মূলতঃ। কোন কনটেন্ট দেশের নীতিমালা বিরুদ্ধ হলে যার কনটেন্ট – দায়ী করতে হবে তাকে। কারণ, এটা ইউজার জেনারেটেড কনটেন্ট। সেটার জন্য আদেশ দিতে হবে স্বাধীন একটা লিগাল এনটিটি থেকে। অনেক দেশে দেখেছি – কোর্ট অর্ডার কাজ করে বেশি। তখন ইন্টারমিডিয়ারীরা মুছে ফেলবে নিয়ম মেনেই। যার কনটেন্ট সরানো হবে তাকেও তার মতামত দেবার সুযোগ দিতে হবে। মুছে ফেলার নির্দিস্ট একটা নীতিমালা চায় তারা। একেকজনের জন্য একেক আচরণ হলে আন্তর্জাতিকভাবে বিপদে পড়বে ওরা। তার আগেই যদি সে দেশ আইনগত ব্যবস্থা নেয়? দেশ যে তা নেবে না সেটার নিশ্চয়তা চায় তারা। আবার সেই কনটেন্টের মালিক যদি সুবিচার চেয়ে মামলা করে? মানে কেন তার কনটেন্ট মুছে ফেলা হলো?

[ক্রমশঃ]

Read Full Post »

When there’s a vacuum of public input, lobbyists usually fill it. But when there’s public input, the people usually win.

Morgan Carroll, Take Back Your Government: A Citizen’s Guide to Making Your Government Work For You

৫১৭.

ডাটা নেটওয়ার্কের দামাদামি একটু ভিন্ন ধরনের। ভয়েস নেটওয়ার্কে এক নেটওয়ার্ক থেকে আরেক নেটওয়ার্কে কল পাঠাতে হলে যাকে পাঠাচ্ছেন তাকে দিতে হয় একটা চার্জ। এটাকে বলে আন্তসংযোগ চার্জ। আমাদের দেশে এটা আঠারো পয়সা। আবার অনেক দেশে দুটো নেটওয়ার্কের ট্রাফিক কাছাকাছি হলে ‘সেন্ডার কীপস অল’ রেজীম ভালো। বিলিংয়ের ঝামেলা কম। একেকজন আরেক নেটওয়ার্কে কল পাঠিয়ে খালাস। আর গ্রাহকের পুরো বিলটা রেখে দেবে সে। ইন্টারনেটের ট্রাফিক বিলিং আরো মজার। ধরা যাক আপনি আইএসপি ‘ক’। আমি তাহলে ‘খ’। আমাদের সমান ট্রাফিক একে ওপরকে দিলে কাটাকাটি। কাউকে দিতে হবে না পয়সা। এটাকে বলে ফ্রি-সেটেলমেন্ট। এটা যেখানে হয় সেটাকে বলে ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ। আজ আমরা ট্রাফিক কিনছি দেশের বাইরে থেকে। কারণ, আমাদের দেশের বেশিরভাগ অনলাইন পত্রিকা হোস্ট করা দেশের বাইরে। ভেতরে হলে সাশ্রয়ী হতো অনেকটা।

৫১৮.

তবে মুদ্রার ওপর পিঠটাও শুনতে হবে আপনাকে। যদি বন্ধ করে দেয় পত্রিকাটা কেউ? আবার, ইকোনমি অফ স্কেলের কারণে হোস্টিং খরচ কম – বাইরে। তবে শুরু করলেই কমে আসবে দাম। ইনফ্রাস্ট্রাকচার তৈরী হতে সময় লাগতো না অতো। ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জগুলো সাধারণত: চলে কোম্পানিগুলোর নিজেদের মধ্যে ‘মেমোরান্ডাম অফ আন্ডারস্ট্যান্ডিং’ থেকে। কিছুটা ‘লুজলি বাউন্ডেড’। উদ্ভাবনা বেশী হয় ওখানে। লাইসেন্স হলে কমে আসে স্পৃহাটা। আমরা যতো বেশি কনটেন্ট বানাবো দেশে – ততো কমবে ইন্টারনেটের দাম। বাইরে থেকে তখন আইপি ট্রানজিট মানে ট্রাফিক কিনবে অন্যদেশ। এরকম হতে হতে এক সময় আমাদের আর ওদের ট্রাফিক হয়ে যাবে সমান। তখন হবে কাটাকাটি। মানে খরচ শুন্য।

৫১৯.

গ্লোবাল ইন্টারনেট ফার্মগুলো ইন্টারনেটকে ‘এক্সপেরিয়েন্স’ বা অভিজ্ঞতা হিসেবে দেখে। মানে তাদের সাইটে গিয়ে আপনার অভিজ্ঞতা খারাপ হোক এটা চায়না সে মোটেই। তার কনটেন্ট সুদুর মার্কিন মুল্লুক থেকে আনতে গিয়ে লোডিং সময় বাড়াবার পক্ষপাতি নয় গুগল বা ফেইসবুক। সেটা চায় না অন্য ইন্টারনেট ফার্মগুলো। ক্লিক দিয়ে কনটেন্ট আসতে সময় নিলে ব্যবহারকারীরা আর আসতে চাইবে না সেই সাইটে। লক্ষ্য করেছেন কি লোডিং টাইম? মানে – যখন কনটেন্ট সার্ভারটা থাকে আপনার বিল্ডিংয়ে? কি ফুর্তিটাই না লাগে তখন? ইন্টারনেট কোম্পানিগুলো চাচ্ছে ওই একই জিনিস। আসতে চাচ্ছে আপনার পাশের বিল্ডিংয়ে। অথবা আপনার শহরে। আর আমার আপনার মতোই ইন্টারনেট কোম্পানিগুলোও চাচ্ছে দাম কমুক ইন্টারনেটের। প্রানপনে। যতো দাম কম সংযোগের – ততো আপটেক মানে ততো প্রসার। সেকারণে বিলিয়ন ডলার ইনভেস্ট করছে সব ইন্টারনেট কোম্পানিগুলো।

৫২০.

তবে আসতে চাইলেও পারছে না কিছু কিছু দেশের নীতিগত সিদ্ধান্তহীনতার কারণে। স্মার্ট কোম্পানিগুলো কিছু ‘ওয়ার্কারাউন্ড’ বের করে নিয়েছে এর মধ্যে। তাদের বহুল ব্যবহৃত কনটেন্টকে আবার দেশের বাইরে থেকে আনতে না হয় – সেজন্য ইন্টারনেট গেটওয়েগুলোকে দিচ্ছে তাদের ক্যাশে ইঞ্জিন। প্রায় বিনামূল্যে। এটা এমন একটা যন্ত্র – যার মাধ্যমে কম কনটেন্ট আনতে হয় দেশের বাইরে থেকে। ইন্টারনেটের বিল কমানো আর আপনার ভালো ইন্টারনেট এক্সপেরিয়েন্সের জন্য খরচ করছে বিস্তর। ইন্টারনেট কোম্পানিগুলো তো আক্ষরিক অর্থে বিনে পয়সায় আপনাকে ইন্টারনেট দিতে পারলে বাঁচে। দেখছেন না – হোয়াট’স অ্যাপের মতো অনেক অ্যাপ চালাতে যে ইন্টারনেট লাগে সেটাও ফ্রি দিচ্ছে আপনার মোবাইল অপারেটর। জিরো.ফেইসবুক বা জিরো.উইকিপেডিয়া ব্যবহার করেননি বিনামূল্যে?

[ক্রমশঃ]

Read Full Post »

The only people who can resist a quick fix are those that are not addicts.

– Gerald Weinberg

৫১৪.

আচ্ছা, ইন্টারনেটের কাঁচামাল কি? ঠিক বলেছেন – কনটেন্ট। এটাই হচ্ছে আমাদের প্রথম ‘দাম কমানো’র টুল। তাহলে পয়সা দিচ্ছি কিসের জন্য? সংযোগ মানে ওই পাইপটার দাম হিসেবে। দুরের কনটেন্টের জন্য আনার খরচ বেশি। আর দেশে থাকলে, দাম পানির মতো। কনটেন্ট আছে কোথায়? তার আগে জিজ্ঞাসা করা উচিত ছিলো আরেকটা জিনিস। আমাদের এই ইকোসিস্টেমে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশটার কথা বলিনি আমরা। গ্রাহক কি চান? জি, আপনাকে বলছি। আপনি কি কাজে ব্যবহার করছেন ইন্টারনেট? ফেইসবুক? সার্চ ইঞ্জিন? গুগল সার্ভিসেস? ওয়েববেসড ইমেইল? খবরের কাগজ পড়া? ফেইসবুক আছে কোথায়? মানে যা যা বললেন সেই কনটেন্ট আছে কোথায়?

৫১৫.

সব দেশের বাইরে। আপনার উত্তর। গুগল.কম.বিডি ও বাইরে। তো সংযোগের দামতো গুনতেই হবে আমাদের। আপনার বন্ধুদের নব্বই শতাংশ সবাই থাকেন বাংলাদেশে। আপনিও তাই। ফেইসবুকের বিলিয়ন কনটেন্ট আপডেট হচ্ছে বাংলাদেশ থেকে। কোটি ছবি হচ্ছে আপলোড। বাংলাদেশ থেকে দেশের বাইরে। ঠিক তো? আর দেখছে কারা? আমরাই। আমরা আছি কোথায়? বাংলাদেশে। বাংলাদেশ থেকে কনটেন্ট আপলোড হচ্ছে বাইরে। আবার ডাউনলোড করছি বাংলাদেশে, দেশের বাইরে থেকে। এটাতো হতে পারে না কোন এফিসিয়েন্ট মডেল। খবরের কাগজের একই অবস্থা। অধিকাংশ পাঠক থাকে বাংলাদেশে। খবরের কাগজের কনটেন্ট তৈরী হচ্ছে বাংলাদেশে। অথচঃ পড়তে হচ্ছে সাত সমুদ্দুর পাড়ি দিয়ে। অনেক দাম দিয়ে ইন্টারনেটের পাইপ কিনে। কমবে কিভাবে ইন্টারনেটের দাম? বলুন আমাকে?

৫১৬.

মেইল করছি আপনি আমি। নব্বই শতাংশ মেইলের প্রাপক আছে কিন্তু বাংলাদেশে। তার মানে আমার মেইল কনটেন্ট আর এটাচমেন্ট সবই যাচ্ছে দেশের বাইরে। হয় সান্তা ক্লারা, না হয় আয়ারল্যান্ড অথবা সিঙ্গাপুরে তাদের কনটেন্ট ডিস্ট্রিবিউশন নেটওয়ার্কে। তারপর ফিরে আসছে বন্ধুদের কাছে – সেই দামী ইন্টারনেট পাইপ দিয়ে। ব্যাপারটা এমন, আপনার বাসার ছাদের পানির ট্যাংকটা রেখেছেন আপনার বন্ধুর বাসার ছাদে – যশোরে। আপনি থাকেন ঢাকায়। পয়সা খরচ না করার জায়গা পেয়ে পানি ওঠানো আর নামানোর পাইপ বসিয়েছেন সেই ঢাকা থেকে যশোরে। একই রাস্তায় ফিরতি পাইপটাও।

[ক্রমশঃ]

Read Full Post »

A policy is a temporary creed liable to be changed, but while it holds good it has got to be pursued with apostolic zeal.

– Mahatma Gandhi

৫১১.

মিলিটারি একাডেমীতে প্রচন্ড চাপে অর্থনীতির ক্লাস পুরোপুরি না বুঝলেও তিনটা জিনিস একেবারে পরিস্কার। মানে ফকফকা পরিস্কার। ডিমান্ড আর সাপ্লাইয়ের গল্প। ক. দাম বাড়ে কেন? বাজারে সরবরাহ না থাকলে। আর? ওটার বিকল্প তৈরী না হলে। খ. দাম কমে কিভাবে? সরবরাহ বাড়লে। সরবরাহ বাড়ে কেন? চাহিদা বাড়লে। মানে চাহিদা বাড়লে সরবরাহ বাড়বে। উত্পাদনও বাড়বে। যতো বেশি বাড়বে উত্পাদন – দাম কমবে ইউনিট প্রতি। ইকোনমি অফ স্কেলের খেলা। মোবাইলের দাম কমছে কিভাবে?

৫১২.

দশ বিশ লাখ পিস অর্ডার না পেলে উত্পাদনে যায় না প্রোডাকশন হাউসগুলো। একই ফোন বাংলাদেশে বিক্রি হচ্ছে মডেল ‘ক’ নাম দিয়ে। ভারতে হয়তোবা ‘খ’, চীনে ‘গ’ নামে। কয়েকটা দেশের অর্ডারের ভিত্তিতে লাখ পিস বানাচ্ছে ওই ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানি। আমার লোকাল ব্র্যান্ডের ফোনটা নিয়ে কষ্টে ছিলাম অনেকদিন। হার্ডওয়্যার ভালো। তবে হাজারো ‘ব্লটওয়ার’ মানে অদরকারী সফটওয়্যার দিয়ে ‘রম’টা ছিলো ভর্তি। পরে কনকা’র একটা মডেল, বিক্রি হয় চীনে – ‘কাস্টম রম’ যোগাড় করে চালাচ্ছি সেটা। ওই একই ফোন চলছে নানা নামে। চলছেও কয়েকটা দেশে। দাম কমবে না মানে? গ. ডিমান্ড বাড়ানোর গল্পটা শিখেছি সিঙ্গাপুর থেকে। শেখাবো সবাইকে। নাহলে ডটের মতো এই ছোট দেশটাতে – দশটার কাছাকাছি সাবমেরিন ক্যাবল সিস্টেম থাকে কি করে?

৫১৩.

ইন্টারনেট কিন্তু ব্যতিক্রমী কিছু নয়। এটাও আমের মতো আরেকটা প্রোডাক্ট। এর দাম কমাতে বাড়াতে হবে সরবরাহ। আর সরবরাহ বাড়াতে তৈরী করতে হবে চাহিদা। তাহলে দাম কমছে না কেন? আমাদের দেশে চাহিদা নেই? এটা বললে তো মার খাওয়ার যোগাড় হবে। এমুহুর্তেই। এনালাইসিস ম্যাসন বলে নামকরা একটা কনসাল্টিং কোম্পানিতে চাকরি করতো আমার এক মার্কিন বন্ধু। সে ওই কোম্পানির একটা রিপোর্ট নিজে কিনে পাঠিয়েছিলো আমাকে। মুরগী আর ডিমের গল্প। ইন্টারনেটের প্রসার বাড়লে বাড়ে দেশের জিডিপি। আবার দেশের জিডিপি বাড়লে সচ্ছলতা বাড়ে মানুষের। তখন ইন্টারনেট কিনতে পারে মানুষ। তাহলে মানুষ ইন্টারনেট কিনবে টাকা আয় করার জন্য – নাকি সচ্ছলতা বাড়লে কিনবে ইন্টারনেট? মানে – এটা একটা সাইকেল। তবে সেটার জন্য ডিমান্ড আর সাপ্লাইয়ের দিকগুলো বোঝা জরুরি।

[ক্রমশঃ]

Read Full Post »

Surround yourself with the best people you can find, delegate authority, and don’t interfere as long as the policy you’ve decided upon is being carried out.

– Ronald Reagan

৫০৮.

প্রয়োজন নীতিমালার। ব্যবস্যাবান্ধব নীতিমালা তো পরে। সরকারী অফিসগুলোতে অনেককিছুই মুখে মুখে। জিনিসগুলো লেখা না থাকার ফলে এগুচ্ছে না কিছুই। আবার ‘উনি’ ছুটিতে থাকলে হবে না কাজ। লিখিত প্রসেস না থাকলে যা হয় আর কি। ‘সিটিজেন চার্টার’ দিয়ে এগিয়েছে দেশ। তবে, সেটার গতি বেশ স্লথ। ভাবছিলাম, লিখবো না নীতিমালা নিয়ে। অন্ততঃ এই বইটাতে। কারণ লেখালিখিতে আমরা বেশ দুর্বল। একারণে, বাংলায় কনটেন্ট আশ্চর্যরকম ভাবে কম। লেখালিখির ছাড়া অন্য দিক দিয়ে কিছু করা যায় না? ভুলে জিগ্যেস করেছিলাম বাইরের এক কনসালটেন্টকে। নামকরা কোম্পানির হয়ে লিখে দেন নীতিমালা – অনেক দেশকেই। বয়স্ক বলে স্নেহ করেন আমাকে। কিন্তু রাগটা লুকিয়ে রাখতে পারলেন না বলে মনে হলো।

আচ্ছা, তোমার দেশ কি চায় সেটা লিখবে না তুমি? সেটার জন্য টাইমলাইনটা গুরত্বপূর্ণ বটে।

লেখা আছে ওটা। বললাম আমি।

ভালো কথা, কিভাবে করবে সেটার অ্যাকশন পয়েন্ট – আর কারা কি কি করবে মানে মন্ত্রনালয়ের মধ্যে কাজের ডিস্ট্রিবিউশন ঠিক না থাকলে কাজ বের করা মুশকিল। থামলেন উনি।

৫০৯.

তোমাদের মতো দেশে ব্রডব্যান্ড এজেন্সী লাগবে প্রধানমন্ত্রীর অফিসে। মন্ত্রনালয়গুলোর সমন্বয় করবে ওই অফিসের পেটে বসে। সোজা কথায় – খবরদারি। এক মন্ত্রনালয় সময়ের মধ্যে কাজ না বের করতে পারলে এটার সহযোগী প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে আটকে না যায় তার প্ল্যান ‘বি’ তৈরী করা থাকবে আগেই। লিড আর সহযোগী মন্ত্রনালয়গুলো ঠিকমতো সিনক্রোনাইজড না থাকলে টাকা গচ্চা যাবার সম্ভাবনা বেশি। ইন্টার-ডিপেন্ডেন্ট কাজে টাইমলাইন না মানলে একজনের কাজ হয়ে গেলেও বসে থাকতে হয় অন্যরা কাজে গাফিলতি করলে। আর, টাইম ইজ মানি!

৫১০.

ধরুন আমাদের টেলিকম পলিসি তৈরী হয়েছে ১৯৯৮ সালে। এটা এতো ডাইনামিক ফিল্ড যে এর মধ্যে এটাকে আপডেট করা যেতো বার কয়েক। নীতিনির্ধারকরা না লেখলে লেখবে কে? তখন লিখতে হবে আমাদেরকেই। দেশতো সবার। সরকার এটা করে না ওটা করেনা বলেতো পার পাবো না আমরা কেউ। আমরাই দেশ। আপনি মানবেন – পৃথিবীর সবচেয়ে সহজ কাজ হচ্ছে আরেকজনকে দোষারোপ করা। সবচেয়ে কঠিন হচ্ছে আসলে কাজটা করা।

[ক্রমশঃ]

Read Full Post »

Older Posts »

%d bloggers like this: