Feeds:
Posts
Comments

The best time to plant a tree was 20 years ago. The second best time is now.

– Chinese Proverb

ক॰

সমস্যাটার শুরু প্রায় এক দশক আগে। ছুটাছুটির চাকরি। আজ এখানে তো কাল ওখানে। শেষমেষ ‘পীস কীপার’ হিসেবে পোস্টিং হলো কঙ্গোতে। ঘুরাঘুরিই বেশি। ঘুমের সময় ছাড়া বাকিটা হিসেব করলে – পুরোটাই রাস্তায়। নিজ দ্বায়িত্বের এলাকা, যাকে বলে ‘এরিয়া অফ রেস্পন্সিবিলিটি’ – ইঞ্চি ইঞ্চি করে না জানলে বিপদ। মানুষের জীবন বলে কথা। পুরো এলাকা থাকতে হবে নিজের নখদর্পণে। কন্সট্যান্ট ভিজিল্যান্স। পায়ে হাটা অথবা গাড়ি – পায়ের মাইলোমিটারে লাখ মাইল পার হয়েছে নিশ্চিত।

খ॰

রাস্তায় নামলেই হাজার চিন্তা কিলবিল করে মাথায়। একটা এদিকে হলে আরেকটা ওদিকে। মাথা মুন্ডু ছাড়া চিন্তাভাবনা। দিন কয়েক পর বেস ক্যাম্পে ফিরলে বসতাম ইউএন এর কচ্ছপ গতির ইন্টারনেট নিয়ে। সভ্যতার সাথে একমাত্র ‘ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ’ – ওই স্যাটেলাইট লিংক। একসময়, প্লট করতে শুরু করলাম চিন্তাগুলোকে। ‘চ্যানেলাইজ’ করতে তো হবে কোথাও। একেকটা চিন্তা একেকটা ডট। কানেক্টিং দ্য ডট’স ব্যাপারটা বুঝলাম অনেক পরে। চল্লিশের আগে নাকি ব্যাপারটা আসে না মাথায়?

জ্ঞান তো হলো অনেক, অভিজ্ঞতা কাজে লাগালে আসবে প্রজ্ঞা। সেটাকে প্রয়োগ করলেই উন্নতি। দেশের।

জ্ঞান তো হলো অনেক, অভিজ্ঞতা কাজে লাগালে আসবে প্রজ্ঞা। সেটাকে প্রয়োগ করলেই উন্নতি। দেশের।

গ॰

আগের ঘটনা আরো চমত্‍প্রদ। কঙ্গোতে যাবার ঠিক আগ মূহুর্তে ফিরেছিলাম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিগন্যাল স্কুল থেকে। থাকতে হয়েছিল লম্বা সময়ের জন্য। প্রায় নব্বই বর্গ মাইলের পৃথিবীর সবচেয়ে বড় টেলিকম্যুনিকেশন ট্রেনিং ফ্যাসিলিটি। যায়গাটাও জর্জিয়ার একটা অজ পাঁড়া গাঁয়ে। সন্ধার পর কুপি জ্বলার মতো অবস্থা। স্কূল থেকে ফিরে কাজ না পেয়ে হাত দিলাম রান্নায়। কাঁহাতক আর খাওয়া যায় ফাস্ট ফুড! পিএক্স থেকে এটা কিনি, ওটা কিনি। বাসায় এসে ভয়াবহ ধরনের ‘টেস্ট এণ্ড ট্রায়াল’। অসুবিধা কি? গিনীপিগ তো নিজে। ক্ষান্ত দিলাম স্মোক ডিটেক্টরের পানির ঝাপটা খেয়ে। বার কয়েক। তবে, একেবারে ক্ষান্ত নয়, কমিয়ে দিলাম গতি। মনোযোগ সরালাম নতুন দিকে।

ঘ॰

বিশাল লাইব্রেরী। এটা ওটা ইস্যু করি, টাইম লিমিটও অসহনীয় লম্বা। পুরনো পত্রিকা, দুস্প্রাপ্য বই সব মাইক্রোফিশেএকদম নতুন বই লাইব্রেরীতে না থাকলেও সেটা কিনে এনে চেকআউট করিয়ে রাখতেন লাইব্রেরিয়ান। আমাজনের বেস্টসেলার লিস্ট দেখা অভ্যাসে পরিনত হয়ে গেলো ওই সময়ে। অবাক হয়ে লক্ষ্য করলাম ‘বেস্টসেলার’গুলো লিখছেন আপনার আমার মতো সাধারণ মানুষ। মানে, পেশাদার লেখক নন তারা। সাহস পেলাম। যাই লিখি, পাঠক পেতেই হবে বলেছে কে? মনের খোরাক মেটানোর জন্য লেখা। ওই বিরানব্বই থেকে। সেথ গোডিংয়ের গলা শুনি প্রায়ই। শিপ, বাডি! শিপ!

ঙ॰

দেখা গেলো ওই ‘বেস্টসেলার’দের কেউ ছিলেন স্টক এক্সচেঞ্জের হর্তাকর্তা, কেউ সিআইয়ের চীফ। ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকার। সরকারী কর্মকর্তা। নেভী সীল। ফুটবল কোচ। জিমন্যাষ্ট। তারা লিখছেন পেছনের অনেকগুলো বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে। ব্যর্থতা থেকে সফলতার গল্প। যা আসলে সাহায্য করছে ওই পড়ুয়া মানুষদের। সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে। বিতর্কিত জিনিস নিয়ে যে লেখা হয়নি তা নয়। লিখেছেন রেচেল মোরানের মতো পেশাজীবীরা। মানে – লেখা হয়েছে প্রায় সব বিষয় নিয়ে। বের হয়ে এসেছে অনেক সমস্যার কথা। সেই ভুল থেকেও শিখছে দেশ। সমালোচনা নিতে পারার মানসিকতার দেশগুলো ওপরে উঠছে দ্রুত। আবার লিখছেন জাতির পিতারা। আজকের ‘আধুনিক’ সিঙ্গাপুরের পেছনে যিনি ছিলেন তারো বই আছে কয়েকটা। নেলসন ম্যানডেলা’র বইটা পড়েছেন নিশ্চয়। সাতাশ বছরের অবিচারের ঘৃণাটা মূহুর্তে গিলে ফেলার ঘটনাটা অজানাই থাকতো বইটা না পড়লে। পড়ছি সবই, বুঝতে পারছি ভালো মন্দ। মন্দটা ফেলে ভালো নিয়ে এগুচ্ছি সবাই আমরা, সময়ের বিবর্তনে। অন্যের কাছ থেকে শিখে। পেছনে লেগে নয়।

চ॰

জ্ঞান কিন্তু রি-ইউজেবল। ব্রিটেনের লেগেছে দুশো বছর প্রায়। শুধু শিখতেই। শিল্পবিপ্লব থেকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র শিখেছে ব্রিটেন থেকে। তাদের লোক পাঠিয়ে। নোটবই ভরে নিয়ে আসতো তাদের অভিজ্ঞতার কথা। জাহাজে করে। সেটা কাজে লাগিয়ে ওই ব্রিটেনের সাথে টক্কর দিয়েছে অনেক কম সময়ে। ‘লীড টাইম’ কমিয়ে নিয়ে এসেছে প্রায় একশো বছর। এই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ওই শেখার চর্চাটা ধরে রেখেছে বলে তারা এখনো শীর্ষে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন শত বিপত্তির মধ্যে উদ্ভাবনা দিয়ে আছে টিকে। নিজেদের দেশে মানুষ কম বলে বাইরের বাজার দখলে ব্যস্ত তারা। এখন বোকারাই বলে যুদ্ধের কথা, বাজার দখলে কে কাকে বাজার বানাতে পারে সেটাই হচ্ছে বড় যুদ্ধ। রক্তপাত ছাড়াই ‘আউটবাউন্ড’ ক্যাশফ্লো!

ছ॰

এশিয়ান দেশগুলো আরো বুদ্ধিমান। ইউরোপ আর অ্যামেরিকা থেকে শিখে সেটা কাজে লাগিয়েছে গত তিরিশ বছরে। এখন টক্কর দিচ্ছে সবার সাথে। হংকং, কোরিয়া, সিঙ্গাপুর অন্যের ‘ঠেকে শেখা’র অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে এগিয়েছে বেশি। পাশ্চাত্যে কোনটা কাজ করছে আর কোনটা করেনি সেটা জানলেই তো হলো! তার সাথে মেশাও ‘লোকাল কন্ডিশন’। আমি এটাকে বলি, ‘ঘুটা’, মানে জ্ঞানের ডিফিউশন। মেলাও হাজারো জ্ঞানের অভিজ্ঞতা। গরীব দেশ হলেও কোন সরকারী কর্মকর্তাকে তো মানা করা হয়না বৈদেশিক ভ্রমনে না যেতে। অথচ কর্পোরেট হাউসে কৃচ্ছতা সাধনে প্রায় সবই চলছে ভিডিও কনফেরেন্সে। দেশের একটাই চাওয়া, শিখে আসা জ্ঞানটা কাজে লাগবে দেশের উন্নতিতে। প্রাথমিক জ্ঞানটা পাবার পর বাকিটা শেখার বাহন হচ্ছে ইন্টারনেট। আর সেকারণে ইন্টারনেট নিয়ে লাগা। জ্ঞান ছড়িয়ে আছে সব যায়গায়, দরকার তার প্রয়োগ।

ঝ॰

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে পেলেন জ্ঞান ‘ক’। এদিকে সিংগাপুর দিলো ‘খ’ জ্ঞান, ভিয়েতনাম থেকে নিয়ে এলেন ‘গ’। এখন – আমাদের স্ট্যাটিস্টিক্যাল ইন্ডিকেটরের সাথে মিলিয়ে যেটা যখন কাজে লাগে সেটাই ব্যবহার করবে বাংলাদেশ। অনেকে এটাকে বলে ‘বেস্ট প্র্যাক্টিসেস’। মানে, যেটা কাজ করেছে অনেক যায়গায়। ‘ওয়েল টেস্টেড’। টেস্ট পেপার সলিউশনের মতো কিছুটা। দেখা গেছে – ওভাবে কাজটা করলে জিনিসটা মার যাবার সম্ভাবনা কম। টেস্ট এণ্ড ট্রায়ালের পর ফুলপ্রুফ হয়েই নাম হয়েছে ‘বেস্ট প্র্যাক্টিসেস’। দেশের ‘লোকাল কন্ডিশন’কে বেস্ট প্র্যাকটিসে ঘুঁটানোতেই রয়েছে মুন্সিয়ানা। ইন্টারনেটকে ছড়িয়ে দেবার ওই ধরনের ‘টেম্পলেট’ নিয়ে কাজ করেছি গত সাত সাতটা বছর।

ঞ॰

মনে আছে বৈজ্ঞানিক নিউটনের কথা? ‘আমি যদি আজ বেশি দেখে থাকি অন্যদের চেয়ে, সেটা পেরেছি পূর্বপুরুষদের জ্ঞানের ভিত্তিতে’। উন্নতবিশ্বের আজকের যা উন্নতি তার সবটাই এসেছে ওই ‘স্ট্যান্ডিং অন দ্য সোল্ডার অফ জায়ান্টস’ কথাটার ওপর ভিত্তি করে। আজ জানি আমরা ট্রানজিস্টর কি – আর কিভাবে কোটি ট্রানজিস্টর থাকে একটা চিপসেটে। নতুন করে ওই ট্রাংজিস্টর উদ্ভাবন না করে বরং কোটি ট্রাংজিস্টরের চিপসেট দিয়ে আর কি কি করা যায় সেটাই ভাববার বিষয়। আর তাই আগের জ্ঞানের ‘ডিফিউশন’ দিয়ে নতুন উদ্ভাবনা কাজে লাগিয়ে ওপরে উঠছে নতুন ইমার্জিং দেশগুলো। এটাকে বলা হয় লিপ-ফ্রগিং।

য॰

সামরিক বাহিনীর স্পেকট্রাম ম্যানেজমেন্টের অভিজ্ঞতা নিয়ে আমার বিটিআরসিতে আসা। টেকনোলজি নিয়ে একসময় লিখতাম কিছু পত্রপত্রিকায়। শুরুতেই ঝামেলা। ব্রডব্যান্ড, ইন্টারনেট – নতুন যাই লিখি সেটা নিয়ে মাথা নাড়াচ্ছিলেন অনেকেই।

“ভালো, তবে সমস্যা অন্যখানে। এটা সম্ভব নয় এদেশে।”

সময় কিন্তু যাচ্ছে চলে। জ্ঞানকে অভিজ্ঞতায পরিণত করতে লাগবে সময়োচিত দর্শন, যুক্ত হবার অদম্য স্পৃহা। লাগবে রেগুলেটরী রেফর্ম। দরকার নেই প্রযুক্তি জানার, নীতিনির্ধারণীদের।

সময় কিন্তু যাচ্ছে চলে। জ্ঞানকে অভিজ্ঞতায পরিণত করতে লাগবে সময়োচিত দর্শন, যুক্ত হবার অদম্য স্পৃহা। লাগবে রেগুলেটরী রেফর্ম। দরকার নেই প্রযুক্তি জানার, নীতিনির্ধারণীদের।

বলেন কি? অবাক হয়ে তাকাই উনাদের দিকে। নীতিমালায় আটকানো আছে জিনিসগুলো। মানে আমরা আটকে আছি আমাদের জালে। জিনিসপত্র না জানার ফলে পিছিয়ে পড়ছি আমরা। যুক্ত থাকার হাজার সুবিধার মূলে হচ্ছে মানুষের মুক্তি। সেটা প্রথমে আসবে অর্থনৈতিক মুক্তি থেকে, জ্ঞান দেবে আমাদের প্রাপ্যতার নিশ্চয়তা। সোশ্যাল মিডিয়ার বিগ ডাটা নিয়ে কাজ করেছিলাম একটা এজেন্সিতে বসে। যুক্ত থাকার ফলে আজ যা দেখছেন, এটা আইসবার্গের ছোট্ট একটা টিপ। আরব বসন্ত, একটা উপসর্গ মাত্র। পালটাচ্ছে পৃথিবী, পাল্টাবো আমরাও। ভালোর দিকে। দরকার ইন্টারনেটের মতো কিছু টুলস।


The two most important days in your life are the day you are born and the day you find out why.

― Mark Twain

র॰

বইগুলো লিখছি কিছুটা দায়বদ্ধতা থেকে। বিটিআরসির সাত বছরের অভিজ্ঞতা মাথায় নিয়ে ঘোরার অন্তর্জালা থেকে মুক্তি পেতে এ ব্যবস্থা। নোটবই সেনাবাহিনীতে পোশাকের অঙ্গ হবার ফলে মিস করিনি খুব একটা। জিম রনের অমোঘ ‘নেভার ট্রাস্ট ইয়োর মেমরী’ বাণীটা খুব একটা বিচ্যুতি আনতে পারেনি ‘নোট টেকিং’য়ে। এখন যুগ হচ্ছে ‘গুগল কীপ’ আর ‘এভারনোটে’র। হাতির স্মৃতি বলে কথা – মাটিতে পড়ে না কিছুই। দেশ বিদেশের ফোরাম, যেখানে গিয়েছি বা যাইনি – হাজির করেছি তথ্য। টুকেছি সময় পেলেই। ভরে যাচ্ছিলো নোটবই। ‘এভারনোট’ আর ‘কীপের’ ভয়েস মেমোতে। পয়েন্ট আকারে। প্রোগ্রামিংয়ের মতো পয়েন্টারগুলো লিংক করা ছিলো মাথায়। ভুলে যাবার আগেই বইগুলোর ব্যবস্থা।

ল॰

আরেকটা সমস্যা তাড়িয়ে বেড়াচ্ছে আমাকে – ওই ছোটবেলা থেকে। কোন জিনিস ধরলে সেটার শেষ না দেখলে ঘুম আসে না আমার। বিশাল বিপদ। আগে ভাবতাম সমস্যাটা আমার একার। ভুল ভাঙ্গলো দুনিয়া দেখতে দেখতে। ইনডাস্ট্রিতে একই অবস্থা। একেকটা রিসার্চ, সফল না হওয়া পর্যন্ত পড়ে আছে মাটি কামড়ে। মনে আছে, হেনরী ফোর্ডের ভি-৮ সিলিন্ডার তৈরির কথা? এই কৌশল ডিফেন্স ইন্ডাস্ট্রি, এরোস্পেস, নাসা, ঔষধ গবেষণা সহ প্রচুর স্পেসালাইজড প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার হচ্ছে। আজকের এয়ারবাস এ-৩৮০, দোতলা উড়োজাহাজ এতো সহজে আসেনি। উনিশশো অষ্টাশির গবেষনার ফল পাওয়া গেছে এপ্রিল দুহাজার পাঁচে, উড়োজাহাজটাকে উড়িয়ে। এরপরও আরো দুবছরের বেশি হাজার হাজার ‘সেফটি টেস্ট’ আর অন্যান্য পরীক্ষা নিরীক্ষার পর প্রথম বানিজ্যিক ফ্লাইট চালায় সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স। অন্য কিছু নয়, ওড়াতেই হবে – তাই উড়েছে উর্রুক্কুটা। কেউ জেদ ধরেছিলো, আট দশ ফ্লাইটের তেল দিতে পারবো না। এক ফ্লাইট এর তেল নাও, নইলে অন্য ব্যবসা দেখো। বোয়িংয়ের ড্রিমলাইনারটাও তৈরি হয়েছে কয়েকটা জেদি মানুষের জন্য। সৃষ্টিকর্তা মানুষকে উজাড় করে দিয়েছেন তার জ্ঞানকে। বাকিটা আমাদের পালা।

শ॰

আজকের ‘ইন্টারনেট’ (যা পৃথিবীকে পাল্টে দিচ্ছে) এর আবিস্কারের পেছনে একই কৌশল ব্যবহার করা হয়েছে। দেশ চেয়েছে ব্যয়বহুল সার্কিট সুইচিং থেকে বের হতে, ডিফেন্স অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সী, সংক্ষেপে ‘ডারপা’ বিভিন্ন উনিভার্সিটিতে ঢেলেছে অঢেল পয়সা, দিয়েছে অনেক সময়। প্রজেক্ট ‘ফেইল’ করেছে হাজারো বার, হাল ছাড়েনি তারা। ফলে তৈরী হয়েছিল আরপানেট, বর্তমান ইন্টারনেট এর পূর্বসুরী। আজকের বিদ্যুত্‍ বাল্ব তৈরি করতে থমাস এডিসনকে চেষ্টা করতে হয়েছিল হাজার বারের বেশি। রিপোর্টার জানতে চেয়েছিলেন তার ‘হাজারবারের ব্যর্থতার অনুভুতির কথা’। এডিসনের জবাব, ফেইল করিনি তো হাজার বার। বরং, লাইট বাল্বটা তৈরি করতে লেগেছিলো হাজারটা স্টেপ।

ষ॰

টেলিযোগাযোগ ব্যবসায় ভাসা ভাসা কাজের উপযোগিতা কম। রেগুলেশনেও একই অবস্থা। দরকার স্পেশালাইজেশন – বাজার বুঝতে। ঢুকতে হবে ভেতরে, অনেক ভেতরে। পুরোটাই অর্থনীতিবিদদের কাজ। ভবিষ্যত না দেখতে পারলে এ ব্যবস্যায় টিকে থাকা কঠিন। টেলিযোগাযোগ কোম্পানিগুলোর জাহাবাজ লোকেরাও মাঝে মধ্যে অত ভেতরে ঢুকতে পারেন না। স্পেশালাইজেশন বলে কথা। সেখানেই আসে টেলিযোগাযোগ কনসাল্টিং কোম্পানিগুলো। ওদের কাজ একটাই, আর এন্ড ডি, সারাবছর ধরে। আবার সেই কনসাল্টিং ফার্ম একই ধরনের কাজ করে বেড়াচ্ছে সব টেলিযোগাযোগ কোম্পানির জন্য। স্পেশালাইজড না হয়ে যাবেই বা কোথায় তারা? আর সেই সল্যুশনের জন্য মিলিয়ন ডলারের নিচে কথা বলেন না কেউই। আর বলবেন নাই বা কেন? এধরনের আর এন্ড ডির জন্য কম কষ্ট করতে হয়না তাদেরকে। প্রচুর রিপোর্ট পড়েছি এই কনসাল্টিং ফার্মগুলোর। রিপোর্টতো নয় যেনো হাতের রেখা পড়ছেন। ভবিষ্যত দেখা যায় রীতিমত। মিলিয়ন ডলারের কনসাল্টিং বলে কথা। টার্গেট দিন এক কোটি কর্মসংস্থানের। তৈরি করে দেবো প্রায়োগিক ফর্মুলা। হতে বাধ্য। জানতে হয় ভবিষ্যত দেখতে। বিগ ডাটা নিয়ে কাজ করতে গিয়ে বুঝতে পারি খানিকটা।

ট॰

তাই বলে সব কনসাল্টিং ফার্ম এক নয়। আমাকে জিজ্ঞাসা করলে, কনসাল্টিং ফার্মের দোষ না দেখে যিনি কাজ দিয়ে বুঝে নেবার কথা – তার কম্পিটেন্সিতে ঘাটতি থাকলে রিপোর্ট খারাপ হতেই পারে। আমি কিনছি রিপোর্ট, না বুঝে কিনলে কনসাল্টিং ফার্মের দোষ দিয়ে লাভ কি? গরীবদেশগুলোতে প্রচুর কনসালটেন্সি হয় বটে, তবে সে দেশগুলো সেগুলো ঠিক মতো বুঝে নেবার সামর্থ বা জ্ঞান থাকে না বলেই ঝামেলা হয়। ডোনারদের টাকায় কনসাল্টেন্সি হলে সেটার অবস্থা হয় অন্য রকম। রিপোর্ট নিজের মনে করে বুঝে নিতে পারলে সেটার দাম মিলিয়ন ডলারের বেশি। সে ধরনের রিপোর্ট বুঝে নিয়েছিলাম বেশ কয়েকটা। পোস্ট-ডক করা যাবে কয়েকটা।

ঠ॰

কাজ করতে গিয়ে পরিচয় হলো বিশ্বখ্যাত অনেকগুলো টেলিযোগাযোগ কনসাল্টিং ফার্মের সাথে। এর সাথে যোগ হলো ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ) আর কমনওয়েলথ টেলিকম্যুনিকেশন অর্গানাইজেশনের (সিটিও) আরো অনেক ইন্ডিপেন্ডেন্ট কনসালটেন্ট। ধারণা পেলাম তাদের কাজের। পড়তে থাকলাম আরো হাজারো রিপোর্ট। দামী সব রিপোর্ট, তবে তার দাম কোনো কোনো দেশ বা এজেন্সি দিয়ে দিয়েছে আগেই। পরিচয় হলো ওভাম, অ্যাকসেন্চার, কেপিএমজি, পিডাব্লিউসি, নেরা আর এনালাইসিস ম্যাসনের মতো তুখোড় তুখোড় ফার্মের সাথে। আবার নিজের প্রতিষ্ঠানেরই কাজ করতে পরিচয় হলো মার্কিন ফার্ম টেলিকমিউনিকেশনস ম্যানেজমেন্ট গ্রূপ, ইনকর্পোরেশন (টিএমজি)র সাথে। তাদের ধরনটাই বুঝতে সময় লেগেছিলো বেশ। তলই পাচ্ছিলাম না প্রথমে। বিলিয়ন ডলারের কনসাল্টিং কোম্পানি বলে কথা। পরিচয় হলো অনেকের সাথে। বন্ধুত্ব হলো অনেকের সাথে। হাতে ধরে দেখিয়ে দিলেন বাংলাদেশের ‘ফল্ট-লাইন’গুলো।

ড॰

একসময় তল পেলাম এই ম্যানেজমেন্ট কনসালটিং ফার্মগুলোর কাজের ধারার। পৃথিবী জুড়ে কাজ করার ফলে কোথায় কি সমস্যা সেটা তারা জানে ভালো। আর সেটা থেকে উত্তরণের পথ বাতলে দেয়া ওদের একমাত্র কাজ বলে ওটাও সে জানে ‘অসম্ভব’ ভালো। গরীব দেশগুলোতে হাজার কোটি টাকার ম্যানেজমেন্ট কন্সাল্টেনসি করে টাকা বানালেও সেটার ব্যর্থতার দায় দেয়া যাবে না তাদের ওপর। ওই দেশের – যাদের ‘কন্সাল্টেনসি’টা বুঝে নেবার কথা তারা ‘ছাড়’ দিলে কাজ হবে কিভাবে? উন্নয়নশীল দেশগুলোকে তাড়াতাড়ি ওপরে উঠতে হলে লাগবে কন্সাল্টেনসি, তবে সেটা ‘পাই’ ‘পাই’ করে বুঝে নেবার মতো থাকতে হবে মানুষ। দু চারটা বৈদেশিক ভ্রমণে ব্যাপারটা উপেক্ষিত হলে জ্ঞান আর প্রজ্ঞাটা হারায় দেশ।

ঢ॰

ব্যাপারটা অনেকটা বিজনেস প্ল্যান কেনার মতো। ও আমাকে বানিয়ে দিলো একটা। না বুঝে দিয়ে দেবো পয়সা? সমস্যা হয় যখন সেটা হয় ‘সরকারী’ মানে জনগণের পয়সা। একারণে উন্নতদেশগুলো ছোট করে নিয়ে আসছে সরকারগুলোকে। যাই হয় সব পার্টনারশীপে। যারাই থাইল্যান্ড গিয়েছেন মুগ্ধ হয়েছেন তারা – বিশাল বিশাল ইনফ্রাস্ট্রাকচার দেখে। বেশিরভাগ ইনফ্রাস্ট্রাকচারই কিন্তু পিপিপি’র মডেলে করা। সরকারের অতো পয়সা থাকে না কোথাও। পিপিপি হচ্ছে গিয়ে পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশীপ। পয়সা যোগান দেবে বেসরকারী কোম্পানি – কাগজ দেবে সরকার, আইনগত ভিত্তি সহ। ‘উইন’ ‘উইন’ ব্যাপার। পয়সা লাগলো না সরকারের। কর্মসংস্থানও হলো। আমাদের পিপিপি নীতিমালা তৈরী হয়নি এখনো।


There is no ‘poor’ country, they are ‘poorly’ managed.

― Slightly modified

ণ॰

উন্নত দেশগুলোতে অনেক বড় বড় কাজে সরকারের দিকে তাকিয়ে থাকে না জনগণ। কারণ এই পিপিপি। যেকোনো দেশের উন্নতির ইনডিকেটর বোঝা যায় ওদেশের পাবলিক ট্রানজিট সিস্টেম দেখে। মানে জনগন কতো সহজে শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যেতে পারছেন – নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে। ঢাকা শহরে সেটার অবস্থা আফ্রিকার অনেক দেশ থেকেও খারাপ। অথচ ব্যবস্যা বান্ধব পিপিপি নীতিমালা থাকলে প্রাইভেট অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিগুলো প্রস্তাব দিতে পারতো সরকারের কাছে। তৈরী করতো ‘ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফান্ড’। ভাগ করে ফেলতো পুরো শহর – চার পাঁচ ভাগে। একেকটা ভাগের রুট নিয়ে দেন-দরবার করতো কনসেশন পিরিয়ডটা নিয়ে। এই রুটটা দাও আমাকে পঞ্চাশ বছরের জন্য। তৈরী করবো স্কাই ট্রেন। ইনফ্লেশন হিসেব ধরে ভাড়ার একটা চার্ট জমা দিতো সরকারকে।

স॰

সফটওয়্যারের মানুষ হিসেবে শূন্য ভার্সন থেকে শুরুতে বিশ্বাসী আমি। শুরু করতে হবে কোথাও। নিউটনের কথায় ফিরে আসবো আবার। ষ্টান্ডিং অন দ্য সোল্ডার অফ জায়ান্টস। আমাদেরও এগুতে হবে পূর্বসূরীর অভিজ্ঞতার ওপর ভর করে। গাছ রোপণ করার কথা ছিল বিশ বছর আগে। সেটা না হলে কি থাকবো বসে? বরং – লাগাবো আজই। বাংলাদেশের ‘যুক্ত’ হবার এজেন্সিতে চাকরি করার সুবাদে গরীব দেশ আমার ওপর যা ইনভেস্ট করেছে সেটা ফিরিয়ে দেবার জন্য নিয়েছি নগণ্য একটা প্রয়াস। নাম দিয়েছি প্রজেক্ট ‘গিভিং ব্যাক’। ব্রডব্যান্ড ছড়িয়ে দেবার ‘চিটকোড’ হিসেবে ধরুন ব্যাপারটাকে। ব্রডব্যান্ডে সফল দেশগুলোর ধারণা নিয়ে ‘আমাদের আঙ্গিকে’ কোডটাকে ‘ক্র্যাক’ করতে চেষ্টা করেছি মাত্র। আর, পয়সার জন্য ওর সাথে থাকবে ইনফ্রাস্ট্রাক্চার ফান্ড। আর এসপিভিলাগবে এটাও

দরকার আপনার সুচিন্তিত মতামত। ওই মতামতের ওপর ভিত্তি করে কাঠামোগত পরিবর্তন আনবো বইগুলোতে।

প্রি-প্রোডাকশন স্টেজ: কাজ চলছে এখনো

প্রথম বই: ইন্টারনেটের মুল্যঃ যে কারনে এখনো ধরাছোয়ার বাইরে

দ্বিতীয় বই: বাতাস ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি: দক্ষ স্পেকট্রাম ব্যবস্থাপনা পাল্টে দিতে পারে বাংলাদেশকে

তৃতীয় বই: রেগুলেট অর নট টু রেগুলেট? চতুর্থ প্রজন্মের রেগুলেটর ও বাংলাদেশ

* লিংকগুলো যুক্ত করা হয়েছে কয়েকটা ব্লগপোস্টের সাথে। পুরো বইগুলো আসবে আস্তে আস্তে – প্রিন্টে।


০৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
সাশান্দ্রা, আইভরি কোস্ট

The two most important days in your life are the day you are born and the day you find out why.

– Mark Twain

০৪.

আমার নিজের একটা তত্ত্ব আছে এই ‘কানেক্টিং দ্য ডটস’ নিয়ে। হয়তোবা এতো বছরের উপলব্ধি থেকে তৈরি হয়েছে জিনিসটা। অনেক কিছু পড়তে গিয়েও আসতে পারে ধারনাটা। ব্যাপারটার নাম দিয়েছি ‘ক্যানভাস’ তত্ত্ব। প্রতিটা মানুষ পৃথিবীতে আসে একটা সময়ের জন্য। ধরে নিন – ওই সময়টাতে সমমাপের একেকটা ‘সাদা ক্যানভাস’ নিয়ে আসি আমরা। জন্মের পর ওই একেকটা জ্ঞান একেকটা বিন্দু হয়ে আঁকা হতে থাকে ওই ক্যানভাসে। সবার ক্যানভাসের জায়গা সমান হলেও যে শিখবে যতো বেশি, তার বিন্দু হবেও বেশি। এক যায়গায় কারো বিন্দু বেশি হলে সেগুলো চলে আসবে কাছাকাছি।

০৫.

হাটতে শেখার জ্ঞানটাকে প্লট করুন একটা বিন্দু দিয়ে। সেভাবে দৌড়ানোটাও আরেকটা বিন্দু হয়ে যোগ হবে আগের হাঁটতে শেখার বিন্দুর কাছাকাছি। সাঁতার শেখাটাও কিন্তু আরেকটা বিন্দু। এগুলো সব কাছাকাছি বিন্দু। তেমন করে ক্লাস ওয়ান পড়াটা একটা বিন্দু, ক্লাস টু আরেকটা। এক ধরনের জ্ঞানগুলোর বিন্দুগুলোই আঁকা হতে থাকে কাছাকাছি।

০৬.

আর এভাবেই তৈরি হতে থাকে একেকটা ‘ফ্লো অফ আইডিয়া’। কয়েকটা বিন্দু মিলে হয় একেকটা ‘ওয়ার্কফ্লো’। যুক্ত হতে থাকে ওই ‘ডটেড’ ইভেন্টগুলো। পাশাপাশি। তৈরি হয় ‘বিগ পিকচার’। মনে আছে ওই প্রথম ভিডিও’র বিন্দু থেকে আঁকা পাখিটার মতো? আর সেসময়ে তৈরি হয় ওই ‘আহা’ মুহূর্তটা!

০৭.

সময় আর অভিজ্ঞতা থেকেই চলে আসে আরো অনেক ‘ডট’। দুটো ‘ডটে’র মধ্যে দূরত্ব কমিয়ে আনে নতুন নতুন জ্ঞান মানে ওই ‘ডট’ প্রতিদিন। মানে নতুন নতুন প্রসেস করা তথ্য। একেকটা বিন্দুর ‘ইনফ্লুয়েন্স’ চলে আসে পরের বিন্দুগুলোর ওপর। আর সেকারণে পেছনের ওই গায়ে গায়ে লাগানো ডটগুলো প্রজ্ঞা দেয় তৈরি করতে – আমাদের সামনের ডটগুলো। ভবিষ্যত দেখার প্রজ্ঞা। কিছুটা বুঝতে পারি এখন – কি করতে চাই জীবনে।

০৮.

যে যতো শেখে তার ক্যানভাসে বিন্দুর সংখ্যা বেশি। আবার, বেশি বেশি বিন্দুতে কাছাকাছি বিন্দুগুলো ‘ইনফ্লুয়েন্স’ করে যে জায়গাগুলোতে – যেখানে বিন্দু পড়েনি এখনো। সেকারণে ওই বিশেষ জ্ঞানটা তার না থাকলেও কাছের বিন্দুগুলো থেকে ‘কনটেক্সচুয়াল আন্ডারস্ট্যান্ডিং’ নিয়ে নেয় ওই মানুষটা। এর সোজা মানে হচ্ছে সেই মানুষটা ‘কানেক্ট করতে পারে ওই ডটগুলোকে। আমার ধারনা, সেটার আউটকাম হচ্ছে ড্যানিয়েল গোল্ডম্যানের ‘ইমোশনাল ইন্টেলিজেন্স’। কিছুটা উপলব্ধির ‘বিগ পিকচার’।

কেন দরকার?

নিজেকে চিনতে। আরো ভালো করে বললে, জানতে – কেন এসেছি দুনিয়াতে।

[ক্রমশ:]

What we see in the Maker Movement, is that a relatively small amount of people can have a big impact. You don’t necessarily need the world largest company behind you.

– Dale Dougherty

Formal education will make you a living; self-education will make you a fortune.

– Jim Rohn

০১.

এটা ঠিক প্রোগ্রামাররা পৃথিবীকে মুঠোয় পুরেছে বেশ আগেই, কিন্তু সেটার পাশাপাশি আরেকটা “স্কিলসেট” প্রয়োজন দুনিয়া জয়ে। আর সেটা দেখতে দিব্যদৃষ্টির দরকার নেই এখন। আপনার ওই প্রোগ্রামিং দিয়ে চালাতে হবে যন্ত্র একটা। তৈরি করতে হবে মানুষের নিত্যদিনের কাজে লাগবে এমন জিনিসের প্রটোটাইপ। সেটা ঠিক মতো চললে তো কেল্লাফতে। দুনিয়া জুড়ে “মেকার’স মুভমেন্ট” দেখলে বুঝবেন কী বলতে চাচ্ছি এখানে। সামনে ব্যাচেলর’স আর মাস্টার’স করে যে কিছু হবে না সেটা বুঝতে পেরেছে অনেকগুলো দেশ। আর সেকারণে “মেকার’স মেনিফেস্টো” নিয়ে এগোচ্ছে তারা। ইনডাস্ট্রিয়াল রেভোল্যুশনের পর ফিরে যাচ্ছি স্মার্ট যন্ত্রেই। এখনকার সব যন্ত্রই হবে স্মার্ট – যাতে বুঝতে পারে মানুষকে। সেটা বানাবে কে?

০২.

‘চাকরি চাকরি’ করে পাগল হয়ে যাচ্ছে আশপাশের মানুষ। ‘বিগ পিকচার’ দেখাতে পারিনি তাদের। তবে ইন্টারনেটের কল্যাণে আমাদের পরবর্তী প্রজন্মের অনেকেই ট্রেন্ডটা ধরতে পেরেছেন বলে মনে হলো। অন্তত: আমার রিসার্চ তাই বলে। তবে সেটা অনেক অনেক কম। আমার ফেসবূক ফ্রেন্ডলিস্টের অনেককেই দেখেছি সাহস করে মাথা খাটিয়ে নেমে গেছেন ইন্টারনেট ভিত্তিক ব্যবসায়। বাসার কম্পিউটারে ডিজাইন করে প্রোডাক্ট বানিয়ে আনছেন কিছু কিছু উদ্যোক্তা। সুদূর চীন থেকে। এটাই হচ্ছে “ডেমোক্রেটাইজেশন অফ টেকনোলজি”। ‘প্রোটোটাইপিং’ এর জন্য ‘থ্রীডি প্রিন্টার’ ধসিয়ে দেবে আগের বিজনেস মডেল। আগের মতো বিশাল প্রোডাকশন লাইন তৈরি করতে হচ্ছে না আপনাকে। নতুন করে হ্যান্ডহেল্ড ডিভাইস কোম্পানীও তৈরি করতে হবে না আপনাকে।

০৩.

মাথা খাটিয়ে সুন্দর ডিজাইন করে অ্যাপলকেও টেক্কা দিতে পারেন আপনি। ‘শাওমি’র তো নিজের ডিসট্রিবিউশন চেইন নেই। তাই বলে কী সে ঠেকে গেছে কোথাও? মানুষ কী চায় সেটা নিয়ে রিসার্চ করে আপনিও দিতে পারেন নিজের মোবাইল হ্যান্ডসেট কোম্পানী। অথবা ‘ফিটবিটে’র মতো প্রোডাক্ট। ‘আলিএক্সপ্রেসে’ গিয়ে দেখেন কী অবস্থা! কোটি কোটি প্রোডাক্ট তৈরি করছেন আপনার আমার মতো সাধারণ মানুষ। মাস লেভেলের প্রোডাকশনে চীনকে টেক্কা দিতে বলেছে কে আপনাকে? ডিজাইন দেবেন – বানিয়ে দেবে গুটিকয়েক মাস প্রোডাকশন কোম্পানী। অ্যাপলও তাদের সবকিছু বানিয়ে আনে ওখান থেকে। ওই ইকোনমি অফ স্কেলের কারণে। এখন কেউ নিজ থেকে সবকিছু বানায় না – বরং সবাই ভাগাভাগি করে নেয় জিনিসগুলো।

০৪.

যে বাচ্চারা নিজে থেকে জিনিস বানায় তারা শেখে তাড়াতাড়ি। কথায় আছে না ‘ইউ ওনলি লার্ন বাই ডুইং ইট’। এখনকার ‘লেগো’সেটে মোটর, ‘ইনফ্রারেড’ ইন্টারফেস তো ডাল ভাত। আর সেকারণে বুদ্ধিমান দেশগুলো তৈরি করে দিচ্ছে অনেক অনেক টূল। নতুন প্রজন্মের জন্য। সেরকম একটা টূল হচ্ছে ‘আরডুইনো’ ওপেন প্ল্যাটফর্ম। বর্তমান প্রসেসরের কাছে এটা নস্যি – পাত্তাও পাবে না একফোটা। তবুও এটাই সেরা। কারণ – এর দাম পানির মতো সস্তা। আর যেকাজ দেবেন সেটা ও জানে কিভাবে করতে হয় পানির মতো করে। পাশের দেশেও তৈরি করছে ওই জিনিস ভেতরে ভেতরে। “মেকার’স লফট” দিয়ে গুগল করতেই চলে এলো কলকাতার অংশটা। অপেক্ষা করছি আমাদেরটা নিয়ে।

০৫.

‘আলিএক্সপ্রেস’ শীপ করছে বাংলাদেশে বেশ কিছুদিন থেকেই। ওদের ইনভেন্টরি দেখে মাথা খারাপ হবার যোগাড় আমার। হেন জিনিস নেই যেটা বিক্রি করছে না ওরা। পুরো পৃথিবী জুড়ে। বেশিরভাগই কাস্টম মেড! সব বাসায় তৈরি। ‘চিপ’, ৯ ডলারের কম্পিউটার তৈরি নিয়ে একটা ডকুমেন্টারী দেখেছিলাম একবার। যন্ত্রটা ডিজাইন করে বাচ্চা কয়েকটা ছেলে চীনে গিয়ে কিভাবে লক্ষ পিস বানিয়ে নিয়ে এলো সেটার গল্প ওটা। সেটা দেখে বোঝা গেলো অনেক কাজ বাকি আছে আমাদের।

[ক্রমশ:]

Again, you can’t connect the dots looking forward; you can only connect them looking backwards. So you have to trust that the dots will somehow connect in your future. You have to trust in something, your gut, destiny, life, karma, whatever.

Believing that the dots will connect down the road will give you the confidence to follow your heart. Even when it leads you off the well worn path, and that will make all the difference.

– Steve Jobs

০১.

মনে আছে ছোট্টবেলার প্রিয় পত্রিকাগুলোর কথা?

অনেকগুলোর শেষ পাতায় থাকতো কিছু বিন্দু আঁকা। পেন্সিল দিয়ে টানতে হবে এক থেকে দুই, দুই থেকে তিন – তারপর চার। শেষমেষ নিরানব্বই পর্যন্ত! ধরতেই পারতাম না প্রথমে – কি দাড়াবে জিনিসটা? শেষে – ওমা, কি সুন্দর পাখি! রং করবো নাকি একটু? এই বিন্দু বিন্দুগুলোকে যোগ করলেই জানতে পারতাম আসলে জিনিসটা কী? যতোই বিন্দু যোগ করে লাইন টানতাম ততোই ধারনা বাড়তো কী জিনিস বানাতে যাচ্ছি তখন। বুঝলাম, জীবনে যতো এগোবো ততো খুলতে থাকবে এর ভেতরের জট। আগে নয়।

০২.

পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন জিনিসটা কি? মনে আছে? প্রশ্নটা করা হয়েছিল গ্রীক দার্শনিক ‘থেলস’কে। ‘টু নো দাইসেল্ফ।’ মানে, নিজেকে জানা। আর সবচেয়ে সহজ? অন্যকে উপদেশ দেয়া। দুহাজার পাঁচে স্টিভ জবসের কমেন্সমেন্ট স্পীচে ‘কানেক্টিং দ্য ডটস’ ব্যাপারটা শুনলেও মাথায় ঢোকাইনি তখন – গভীরভাবে। পরে বুঝেছি ধীরে ধীরে। ওই ‘ডট’গুলো হচ্ছে আপনার আমার জীবনের অভিজ্ঞতা আর ‘দ্য চয়েসেস উই হ্যাভ মেড’। মানে – আমাদের লেগে থাকার আউটকাম। আমরা যখন পেছনে তাকাবো জীবন নিয়ে, একটা প্যাটার্ন ফুটে উঠবে আমাদের কাজে। কি কি করেছি আমরা। এটা আমাদেরকে জীবনকে দেখতে শেখায় নতুন একটা ‘পার্সপেক্টিভ’ থেকে। আসলে জীবনের হাজারো ‘ইভেন্টে’র পেছনের একটা ট্রেন্ড, আমাদেরকে তৈরি করে দেয় – সামনে দেখতে।

০৩.

জবসের ভাষায় – আমাদের মন যেটাকে টানে সেটাকে সত্যি করে বিশ্বাস করলে “বিন্দুগুলো” কানেক্ট করবে কিন্তু একসময়। আজ না হলেও হবে একদিন না একদিন। এই বিশ্বাসই আমাদের যোগাবে সেই পথে থাকার মনোবল। আর সেই বিশ্বাস আমাদের হাজারো কষ্টকর রাস্তায় নিলেও সেটাই কিন্তু পাল্টে দেবে আমাদের। বিশেষ করে অন্যদের থেকে। ওই ঝামেলার রাস্তাটা পার হতে গিয়ে যা শিখবো সেটাই নিয়ে যাবে আমাদের অন্য মাত্রায়। আমি কিন্তু বিশ্বাস করি ব্যাপারটা। আমার জীবনে ঘটেছেও তাই।

[ক্রমশ:]

I think most clearly when I’m driving. Sometimes I’ll just take a break and drive around—this helps a lot.

― Barbara Oakley, A Mind for Numbers: How to Excel at Math and Science

২৪.

যারা “মোবাইল ওয়ার্ল্ড কনগ্রেস”য়ে যান তাদের ব্যাগের কয়েক আউন্স চেয়ে মাঝে মধ্যে আব্দার করি পরিচিতজনদের কাছে। তবে সে আব্দার সবাই যে মনে রেখেছেন সেটাও ঠিক নয়। আর সেটাই বা আশা করি কিভাবে? যেখানে ৮০-৯০ হাজার মানুষের মিলনসভা সেখানে মনে রাখাই তো বিপদ। আমিও মনে রাখতে পারতাম না ওভাবে। তবে সাঈদ ভাই মনে করে এনেছেন একটা বই, “একেবারে” আমার জন্য। “ইন্টারনেট অফ থিংস” নিয়ে একটা এগজিকিউটিভ হ্যান্ডবূক। ছোট্ট বই, তবে মরিচ বেশি। একেবারে মিলিয়ে একশো পাতার বই। বাইরে থেকে কিনতে গেলে বইটার দাম পড়তো প্রায় ৫০ ইউরো। দামের সাথে মিলবে না ‘কী লেখা’ আছে ওখানে। “আইওটি” ইনডাস্ট্রির বাঘা বাঘা মানুষ লিখেছেন তাদের অভিজ্ঞতার কথা। মজার কথা বেশীরভাগই এসেছেন জার্মানী থেকে।

২৫.

যারা বার্সেলোনার ‘মোবাইল ওয়ার্ল্ড কনগ্রেসে’ যাননি তাদের জন্য কিছু পয়েন্টার। মোবাইল ইনডাস্ট্রির অ্যাসোসিয়েশন জিএসএমএ’র তত্ত্বাবধানে এই মোবাইল ওয়ার্ল্ড কনগ্রেস হচ্ছে একটা বিশাল নেটওয়ার্কিং স্পেস। মোবাইল ইনডাস্ট্রির সাথে থাকা হেন মানুষ বা কোম্পানী নেই যাদের পাওয়া যায় না ওখানে। লাস ভেগাসের “সিইএস” মিলনমেলার মতো কিছুটা। আর সেকারণে সবার লক্ষ্য থাকে তারা (কোম্পানী) কে কে কী কী করছেন সেটা সবাইকে জানানো। আর আমরা যারা যাই ‘আম জনতা’ হিসেবে তাদের একটা বড় লক্ষ্য থাকে ওদের কাজ থেকে জ্ঞান ধার নেয়া। ওদের কাজ আমাদের দরকার থেকে দশগুণ এগিয়ে থাকলেও সেটার ধারাবাহিকতা ধরতে পারলে কাজটা হয়ে যায় সহজ। ইমার্জিং ইকোনমিগুলোতে মোবাইল অপারেটরদের অপূর্চুনিটি আছে যেমন, সেভাবে চ্যালেন্জও কম নয়। আর সেকারণে ওই মহামিলনমেলায় চলে জ্ঞানের আদান প্রদান। মিটিং, হাজারো প্রেজেণ্টেশনের পাশাপাশি ছড়িয়ে ছিটিয়ে রেখেছে অনেক কাগুজে জ্ঞান। প্রফেশনালি ক্যাজুয়াল।

২৬.

আর সেদিক থেকে এগিয়ে আছে “জিএসএমএ” নিজেই। প্রতিবছর প্রচুর মেধা – শ্রম – অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে বের করে অনেক অনেক পাবলিকেশন্স। ভাবতেই পারবেন না কতো কতো রিপোর্ট। সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ, বার কয়েক যাবার সুযোগ হয়েছিলো আমার ওখানে। দ্বিতীয়বার যাবার সময় দেখি হুলুস্থুল কান্ড। এমিরেটসের কানেক্টিং ফ্লাইটও পাল্টে গেলো ওভার নাইট। আগের এয়ারক্রাফ্ট টাইপ ভোজবাজির মতো মুছে সেখানে এসে হাজির হলো “এয়ারবাস এ৩৮০”। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এয়ারক্রাফট, এখনো। তবে সেটাও অনেকদিন আগের কথা। ওই ডেস্টিনেশনে ওই উড়ুক্কু যন্ত্রটা আগে যায়নি বলে আমরাও সবাই পেলাম বেশ কয়েকটা শুভেন্যির। ল্যাপেল পিনটাও যত্নে রেখেছিলাম অনেকদিন। বার্সেলোনা এয়ারপোর্টে টাচডাউন করতেই আমাদের চক্ষুস্থির। এলাহী কান্ড। বড় বড় পানির হোসপাইপ দিয়ে বিমানটাকে স্নান করালো কয়েকদফা। আমরা ভেতরে। জানলা, এয়ারশো ক্যামেরা দিয়ে দেখা গেল পুরো ব্যাপারটা। এয়ারপোর্ট ছেড়ে আসার সময় পানিতে ভেজা ল্যান্ডিং স্ট্রিপে চকচকে এয়ারক্রাফ্টটা মনে ছিলো অনেকক্ষণ ধরেই।

২৭.

ফিরে আসি পাবলিকেশন্সে। নামিদামী কন্সাল্ট্যান্ট গ্রুপ, অ্যানালিটিক্স কোম্পানীকে দিয়ে তৈরি করে নেয়া ওই রিপোর্টগুলোতে তাদের কিছু সাবলাইম ইনফর্মেশন থাকলেও তার প্রায় প্রতিটিই থাকে দেশগুলোতে ব্যবহারযোগ্য তথ্য। ‘আউটকাম’ থেকে ওখানে যে পদ্ধতিটা ব্যবহার করা হয়েছে সেটাই দেখার বিষয়। ওখানকার বই পড়েই আমার মাথায় প্রথম আসে দেশের ফোন কলের দাম ধার্য করার “ইন্টারকানেকশন কস্ট মডেলিং” এক্সারসাইজ। সেটার ফলে দাম কমেছে দু দফা। আরো সম্ভব। আর বাজারে প্রতিযোগিতা ঠিকমতো আছে কিনা সেটার জন্য দরকার ছিল “প্রতিযোগিতা নীতিমালা”। সেই “সিগনিফিক্যাণ্ট মার্কেট পাওয়ার” আইডিয়াটা পেয়েছিলাম তাদের বই পড়েই। আমার কথা একটাই। পড়তে হবে সবকিছুই। মুড়ির ঠোঙ্গা, ওষুধের লিফলেট – অপারেটিং ম্যান্যুয়াল। সব ধরনের জ্ঞান থেকে আসে প্রজ্ঞা। পড়তে হবে ভালো খারাপ সবকিছু। খারাপটা না জানলে সেটা ফিল্টার করবো কী করে? হাজারো জ্ঞানের ফোটা থেকে একটা প্রজ্ঞাই দেয় বা কে? নিজের অভিজ্ঞতা থেকে প্রজ্ঞাটা আসাটা আরো জরুরী। ইট’স অল অ্যাবাউট কানেক্টিং দ্য ডটস।

২৮.

মনে আছে প্রথম দিকের কম্পিউটার মেলাগুলোর কথা? মেলাতে যেতামই কাগজ টোকাতে। ওকে, অনেকে অফেণ্ডেড হতে পারেন বলে খুলেই বলছি এখানে। মেলাতে বসে তো আর জিনিসপত্র বুঝতে পারতাম না অনেক কিছুই। এটা কী ওটা কী কাঁহাতক আর জিজ্ঞেস করা যায় কতোজনকে। বরং জিজ্ঞেস করতাম ‘কাগজ’ মানে ‘ব্রোশিওর’ আছে কিনা পড়ার জন্য? বাসায় এসে ওগুলো পড়তাম রসিয়ে রসিয়ে। সপ্তাহ লাগিয়ে। অল্প অল্প করে। ‘চাংকিং’ মোডে। একসময় দেখা গেলো ওই ফীল্ডে যারা কাজ করছেন তাদের থেকে অনেক কিছুই বেশি জেনে গেছি সব খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পড়ার কারণে। ‘ডিফিউজড’ মোডে থাকার জন্য হয়তোবা। প্রতিটা যন্ত্র কেনার পর সেটার ম্যানুয়ালসহ পুরো প্যাকেট প্রায় মুখস্ত হয়ে যেতো প্রথম ওই কয়েকদিনের মধ্যে। কে জানে কোথায় কী লেখা আছে যেটা জানি না আমি। সবই পড়ি, তবে অনেক অনেক সময় নিয়ে। এখন চীনেবাদাম কিনলেও সেটার ঠোঙ্গাও বাদ পড়ে না আমার খুঁটিয়ে পড়ার হাত থেকে। সেটার আউটকাম? অনেক কিছুকে কানেক্ট করতে পারি ‘এক্সপ্লিসিট’ভাবে না বলে দিলেও। অনেকে আমার কাছে এসে মুখ না খুললেও ধারনা করতে পারি কী বলতে চাচ্ছেন উনি। পুরোটা না হলেও অনেকটাই কাছাকাছি হয় বেশীরভাগ সময়ে। এখন বুঝি বারবারা ওকলে’র কথা। বিশেষ করে ‘লার্নিং হাউ টু লার্ন’ কোর্সটা নিয়ে।

[ক্রমশ:]

Again, you can’t connect the dots looking forward; you can only connect them looking backward. So you have to trust that the dots will somehow connect in your future. You have to trust in something — your gut, destiny, life, karma, whatever. This approach has never let me down, and it has made all the difference in my life.

– Steve Jobs

২০.

এই ব্যাপারটাই হচ্ছে ‘কানেক্ট দ্য ডট’। আর সেটা বুঝেছি চল্লিশের পর এসে। অথচ, সেটা বিশ বছর আগে বুঝলে হয়তোবা যেতাম অন্যদিকে। তার মানে এই নয় যে আমি যেখানে আছি সেখানে সাফল্য পাইনি। তবে, এখন বুঝি, মনের টান থেকে যা যা করেছি সেগুলোর শুরুটা অথবা মাঝপথে হাজারটা বিপদে পড়লেও উতরে গিয়েছি মনের টানে। আসলে সেটা মনের টান নয় বরং ওই জ্ঞানগুলো ‘কানেক্ট’ করে আমাকে নিয়ে গেছে নিয়ে গেছে সাফল্যের কাছে।

২১.

এটা ঠিক যে বিশ বছর আগে গিয়ে কিন্তু যুক্ত করা যেতো না কাজগুলোকে। কোন কাজগুলো আপনাকে সাফল্য দিয়েছে সেটা বোঝা যাবে পরে এসে – পেছনে ফিরে। আর সেকারণে আজ আমার বয়স বিশ হলে আমার মন যেটা টানতো সেটা নিয়েই পড়ে থাকতাম বছরের পর বছর। আজ বুঝি, যেটা ভালোবেসে ছিলাম সেটাই পেরেছি করতে। অনেক ঝামেলার পরও। হয়তোবা বিপদে পড়েছিলাম – কিন্তু সেটা একটা সময়ের জন্য। সাফল্য পাওয়া মানুষগুলোকে ‘অ্যানালাইসিস’ করেও দেখা গেছে একই গল্প। আমার সাফল্য তাদের তুলনায় নগণ্য হলেও ট্রেন্ড বুঝতে অসুবিধা হয়নি কিন্তু।

২২.

আমার একটা নিজস্ব থিওরি আছে এ ব্যপারে। জীবনটাকে ধরে নিয়েছি একটা ক্যানভাস হিসেবে। জন্মেই ক্লীন স্লেট। কথা বলা, হাটতে শেখা হচ্ছে এক একটা বিন্দু। যতো নতুন নতুন জিনিস শিখবো ততো নতুন বিন্দু যোগ হবে ওই ক্যানভাসে। যতো বেশি জিনিস শিখবো ততো বিন্দুগুলো চলে আসবে একে অপরের কাছাকাছি। নিজে থেকে ‘কানেক্ট দ্য ডট’ করার প্রয়োজন হবে না তখন। আবার, একেকটা বিন্দু অন্য বিন্দুর যতো কাছাকাছি হবে ততো সেগুলোর কনটেক্সচুয়াল ইনফ্লুয়েন্স বাড়বে। আর সেকারণে আশেপাশের কয়েকটা বিন্দুর জ্ঞান থেকে তৈরি প্রজ্ঞা সমাধান দেবে বাকি ‘আন-রিজল্ভড’ সমস্যার। মনে আছে ওই রিসার্চটার কথা?

২৩.

বড় বড় দুরূহ, অসম্ভব জটিল আর লম্বা প্রজেক্টগুলোকে চালানোর কৌশল শুরু হয়েছে এই বিন্দু থেকে। প্রথমে প্রজেক্টটাকে ছোট ছোট ভাগে (মাইলস্টোন) ভাগ করে ডিপেন্ডেন্সি দেখে নেয়া হয়। ধরা যাক, বিন্দু ‘ক’ থেকে ‘খ’, ‘গ’ থেকে ‘ঘ’ আর ‘ঘ’ থেকে ‘ঙ’ করতে যে প্রযুক্তি প্রয়োজন তা বর্তমানে উপস্থিত অথবা, সময়ের মধ্যে তৈরী করে নেয়া যাবে। কিন্ত, ‘খ’ থেকে ‘গ’ অংশটা কিভাবে হবে তার সমন্ধে কারো কোনো ধারণাই নেই। প্রজেক্ট শুরু হয়ে যাবে, ‘খ’ থেকে ‘গ’ অংশটা কিভাবে হবে তা বাকি প্রজেক্ট এর গতি কমাবে না। সবসময়ে দেখা যায় (পরীক্ষিত বটে), বাকি অংশগুলো হবার সময় যেহেতু প্রজেক্টটা বের করে নিতেই হবে, অন্য অংশের উপলব্ধিগুলো জড়ো হয়ে অজানা অংশটুকুও বের করে নিয়ে আসে।

আমি কি চাই, তা ঠিক মতো পিনপয়েন্ট করে – বিশ্বাস করে লেগে থাকলে তা পাওয়া যাবেই। বিশ্বাস করলেই করা যাবে সবকিছু। ‘কানেক্ট দ্য ডট’ থেকে এটা না শিখলে পরে পস্তাবেন অনেকেই।

[ক্রমশ:]

১৫.

মনে আছে পত্রিকাগুলোর কথা? মানে, আমাদের ছোটবেলার ওই শিশুতোষ পত্রিকাগুলো? যেগুলো পাল্টে দিয়েছিল আমাদের এখনকার চিন্তা ভাবনা। শিশু? নবারুণ? কৈশোরে এসে পেলাম কিশোর পত্রিকা! যারা লিখতেন তারা জানতেনও কিভাবে জানি – কি চাই আমরা। ‘সুমন আর মিঠুর গল্প’, ‘কুশল আর মৃত্যু বুড়ো’? পরের দিকে – ‘দীপু নাম্বার টু’? মনে নেই তবে কোন যেন একটা পত্রিকার শেষ পাতায় থাকতো কিছু বিন্দু আঁকা। পেন্সিল দিয়ে টানতে হবে এক থেকে দুই, এর পর তিন – চার। নিরানব্বই পর্যন্ত! ধরতেই পারতাম না প্রথমে – কি দাড়াবে জিনিসটা? ওমা, কি সুন্দর পাখি! রং করবো নাকি একটু?

পয়তাল্লিশে এসে ফিরে তাকালাম একবার। পেছনে। জিরাবো কিছুক্ষণ। হিসেবপাতিও করবো কিছু। কি করতে পেরেছি আর কি আছে বাকি?

১৬.

এখন বুঝি, মনের অনেক টান অগ্রাহ্য করেছি সারাজীবন। ভয় পেয়েছি, আশেপাশের মানুষ কি বলে। এটা ওটা করতে চেয়েছি – পিছিয়ে এসেছি পরমূহুর্তে। যেতে চেয়েছি এখানে ওখানে। ‘পয়সা না থাকা’র খোঁড়া যুক্তিতে আটকে ছিলাম ওই সময়গুলোতে। দুহাজার সাতে এসে শুনলাম নামকরা ইউনিভার্সিটির একটা কমেন্সমেন্ট অ্যাড্রেস। ইউনিভার্সিটি থেকে পাস করে বের হবার দিন এক একজন বিখ্যাত মানুষকে ডাকা হয় তার অভিজ্ঞতা বলতে। দুহাজার পাঁচে দেয়া ওই বক্তৃতার সময় মানুষটাকে পছন্দ করতাম না তেমন একটা। ছোট্ট ছোট্ট তিনটা গল্প বলেছিল মানুষটা। গল্পগুলো দাগ কাটলো তার প্রায় ছয় বছর পর। বলতে পারেন চল্লিশে এসে বুঝতে পারলাম প্রতিটা লাইনের অর্থ।

১৭.

মানুষটা কেন জানি ‘সনাতন’ জিনিস মানেনি। আমরা কি পারতাম কলেজে না পড়ে ইচ্ছামতো জিনিস নিয়ে কাজ করতে? মন যা চায় সেটা করার মতো সাহস এখনো আসেনি আমার। অথচ, মনের টানে কলেজ ছেড়ে ইচ্ছেমতো জিনিস শিখে পৃথিবী পাল্টে দিয়েছে ওই মানুষটা। সে যখন ওই কাজগুলো শিখেছে তখন সে নিজেও জানতো না যে জিনিসগুলো তার কাজে লাগবে পৃথিবী পাল্টাতে। মানে ‘ডেলিবারেটলি’ জেনে কোন কিছু করেন নি উনি।

১৯.

মন চেয়েছে তাই করেছেন। বিশ্বাস ছিল যে জিনিসটা পাল্টে দেবে মানুষের অভিজ্ঞতার ব্যাপারগুলোকে। সেটা করতে গিয়ে অনেক সমস্যাতেও পড়েছিলেন উনি। সেটার ভয়ে কাজগুলো ফেলে পালায়নি মানুষটা। তখনও বোঝেননি কি করতে চলেছেন উনি। পৃথিবী জয় করলেন একসময়। অনেক কাজ করেলেন নিজের মতো করে। আর সেগুলোকে বিন্দু হিসেবে কানেক্ট করতে গিয়ে শেষ বয়সে এসে বুঝতে পারলেন আসল জিনিসটা।

[ক্রমশ:]

Everyone should learn how to program a computer, because it teaches you how to think.

– Steve Jobs

I’m 45. And, why should I even learn programming? Come on!

I know what you said, but even if you don’t invent the next Facebook or Google, knowing the basics of programming is life changing. Depending on whatever the challenge and the opportunity is there we really wanna leverage or make sure that we’re ahead in the game of life.

02.

First, learning to programming is not only about learning to that physical coding, it’s about learning how to learn. Mostly, for leading a structured life. Learning to code is about learning to search for the right and appropriate information, can I call it required data set? From the age of information overload.

03.

Second, it literally changes the outlook on a lot of things. At least, for now. Yes, It includes structured methods, smart techniques to deal with the problem. Learning to programming is a great practice for precise, disciplined, and abstract thinking. You know, a program either works, or it doesn’t. Come on, it’s digital landscape! Zero and one!

It could have bugs, maybe some are straightforward or subtle, but that requires a through analysis and concentration. And, believe me that make you learn to think! Who cares? But, you should care. You can even predict, how smart you become!

04.

Third, this is not primarily about getting the next generation to work as software engineers, it is about promoting functional thinking. The thinking is how software engineers solve problems. It does combine mathematics and logic, algorithms, and obviously teaches you a new way to think about the world. Mostly, how to deal with the problems everyday.

This functional thinking forces you how to tackle large problems .. by breaking them down into a sequence of smaller, more manageable problems. It allows you to deal complex problems in efficient ways that operate at huge scale.

05.

It also involves creating models of the real world with a suitable level of abstraction. You have guessed it right! And makes you focus on the most pertinent aspects. The more I learned about this coding, the more I got lit up. True! It helps you to get to the place where you wanted to go. Because, You should always consider what you are bringing to the table versus the procedure you are following up.

Yes, you should check out what that is. Trust me.

06.

The joy, and the pride takes you to a level when suddenly code works. It is, I don’t know – but sure, it feels like heaven.

Finally? Learning a language, whether programming or foreign, does format our brains with a new mindset. Who doesn’t need that? I guess, everybody!

Good bye.

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.

Join 788 other followers

%d bloggers like this: